NarayanganjToday

‘ঋতুস্রাব’ নিয়ে কুসংস্কার, লজ্জা ভাঙার সময় এসেছে


‘পিরিয়ড’ বা ‘ঋতুস্রাব’ অথবা ‘মাসিক’ আর পাঁচটা স্বাভাবিক শারীরিক প্রক্রিয়ার মতোই একটি প্রক্রিয়া। তবুও ঋতুস্রাবের মত স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে ঘিরে এখনো এই সমাজে নানা কুসংস্কার রয়ে গেছে। একজন নারীর ‘পিরিয়ড’ বা ‘ঋতুস্রাব’ অথবা ‘মাসিক’ হলেই তাকে এ সমাজ অশুচির তকমা দিয়ে থাকে! এ সমাজে এমন সংস্কৃতি বহুকাল আগের থেকেই চলমান।

ধরুন একজন নারী প্রতিদিনের মতোই পরের দিনের বেশ কিছু কাজের রুটিন তৈরি করে ঘুমোতে গেলেন। পরেরদিন সকালে উঠে তিনি অনুভব করলেন, তার ইউটেরাসে ব্যথা, তখন কি তার পক্ষে সম্ভব নতুন একটি দিন শুরু করা? কারণ, একই সময় তার শরীরের নানা অংশ ক্র্যাম্প হয়ে যাবে, শুরু হবে ‘ঋতুস্রাব’।

একজন মেয়ের জন্য ‘ঋতুস্রাব’ আনন্দের নয়, উল্লাসের বিষয়ও নয়। আবার কিন্তু লজ্জার বিষয়ও নয়। তবে এই ‘ঋতুস্রাব’ একজন মেয়েকে কতটা কষ্ট দেয়, কতটা যন্ত্রণা দিয়ে থাকে, তা একজন মেয়েই ভালো বলতে পারবে। তবে সব যন্ত্রণা সে নিজেই মুখ বুঝে সহ্য করে যায়। চিৎকার করে কাঁদতেও পারে না। বলতেও পারে না তার যন্ত্রণাটা কোথায়?

‘ঋতুস্রাব’র দিনগুলিতে একজন নারীর মন-মেজাজ এতটাই খারাপ থাকে যে, অনেক সময় সেই রাগ গিয়ে পড়ে সন্তান অথবা কাছে থাকা কোন মানুষের উপর। কিন্তু কেউ বোঝার চেষ্টা করে না, এই নারীর ‘ঋতুস্রাব’ চলছে, এবং এটি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক একটি শারীরিক প্রক্রিয়া।

এ সমাজের অনেকে আবার ‘ঋতুস্রাব’ চলাকালীন মেয়েদের অপবিত্র তকমা দিয়ে থাকে। সমাজের একটা বড় অংশ এখনও মনে করেন, একজন মেয়ের ‘ঋতুস্রাব’ হওয়া মানে সে অশুচি, অ-পবিত্র! যার ফলে ‘ঋতুস্রাব’ চলাকালীন মেয়েরা রান্না করতে পারবেন না, মন্দিরে যেতে পারবেন না, আচারে হাত দিলে তা খারাপ হয়ে যাবে, এছাড়া আরও অনেক কুসংস্কার প্রথা চালু আছে ‘ঋতুস্রাব’ নিয়ে।

তবে অবাক করার বিষয় হচ্ছে যে, এখনও বহু নারী বাজারে গিয়ে স্যানিটারি ন্যাপকিন কিনতে লজ্জা পান! দোকানের লোকও ন্যাপকিন এমনভাবে কাগজে মুড়ে দেন, যেন এগুলো অবৈধ কোনো কিছু! যেন, কত গোপন একটা ব্যাপার!

স্যানিটারি ন্যাপকিন বিক্রি করার সময় একজন দোকানদার এতোটা রাখঢাক করবেন কেন? আর মেয়েটিই বা কেন এতোটা ইতস্তত করে তা গোপন করে কিনবে? ‘ঋতুস্রাব’ হওয়া কি খারাপ?

তাহলে কী একজন নারীর উচিত, এটা লুকিয়ে রাখা? অথচ একজন মেয়ের ‘ঋতুস্রাব’ শুরু হওয়া মানে, ওই মেয়ে আরেকটি প্রাণের জন্ম দিতে পারার শক্তি সঞ্চার করেছে, এমনটাই তো জানান দিয়ে থাকে। এই ‘ঋতুস্রাব’ এর প্রচলন না থাকলে আমার মতো কিংবা আপনার মতো পুরুষগুলোই বা কীভাবে এই পৃথিবীর আলো-বাতাস দেখত?

এছাড়া ‘ঋতুস্রাব’ তো একটা স্বাস্থ্যকর প্রক্রিয়া এটাই বা কেন বুঝতে চাই না আমরা? নিয়মিত ‘ঋতুস্রাব’ হওয়া মানে অনেক রোগ-প্রতিরোধ সহায়ক। তাহলে এ নিয়ে এতোটা নোংরামি কেন? কেন এতোটা রাখঢাক? আর মেয়েরাই বা কেন এ নিয়ে এতটা অস্বস্তিতে ভোগেন?

এখনও প্রত্যন্ত অঞ্চলের মেয়েরা প্রতি মাসে এক সপ্তাহ করে স্কুল যাওয়া বন্ধ করে দেয় ‘ঋতুস্রাব’ চালু হলে। কেন না, অন্য কেউ যদি জানে তার ‘ঋতুস্রাব’ চলছে, তাহলে এ নিয়ে তাকে নানা টিটকিরিমুলক কথা শুনতে হবে। যার জন্য সে নিজ থেকেই স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয় লজ্জার হাত থেকে বাঁচার জন্য। আর এই সংস্কৃতির জেরে অনেক মেয়ের পড়াশোনারও ক্ষতি হয়।

শুধু গ্রাম কেন বলি! একই কলেজে পড়া একই সাথে চলা অনেক ছেলে বন্ধুরাও যখন শুনে তার মেয়ে বন্ধুটির ঋতুস্রাব চলছে, তখন সেও মুচকি হাসে! আড়ালে আবডালে এ নিয়ে অনেক কথাও চলে! গল্পে উঠে আসে নানা কথা। নানাভাবে লজ্জায় ফেলে দিয়ে ঋতুস্রাব চলা মেয়েটিকে নিয়ে মজাও লুটে। এসব কারণে একজন মেয়ে কাছের ছেলে বন্ধুর সাথেও এ নিয়ে কথা বলে না, লজ্জা ও সংকোচবোধ করে। যার কারণে ঋতুস্রাব চলাকালে শহুরে অনেক মেয়েও নিজেকে অনেকটা আড়াল রাখে।

কিন্তু না। ‘ঋতুস্রাব’ নিয়ে মানুষের ভুল ধারণা পরিবর্তন করার সময় এসেছে। যতদিন না ‘ঋতুস্রাব’ নিয়ে এসব কুসংস্কার দূর হয় ততদিন পর্যন্ত এ নিয়ে প্রতিটি মেয়েরই লড়াই করা উচিৎ। সেই সাথে দরকার, ‘ঋতুস্রাব’ চলাকালীন সময় যাতে কোন মেয়ে লজ্জা না পায়, লজ্জা ভেঙে যাতে সে বাইরে আসতে পারে, সে জন্য সচেতনতা বৃদ্ধি করা।

মেয়ে, আর নয় মুখ লুকিয়ে কাঁদা, ‘ঋতুস্রাব’ স্বাভাবিক, এ নয় কোন বাধা। জাগো নারী জাগো, ‘ঋতুস্রাব’ নিয়ে কুসংস্কার, লজ্জা ভাঙার সময় এসেছে, জাগো এবার জাগো।

প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। নারায়ণগঞ্জ টুডে-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য নারায়ণগঞ্জ টুডে কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

উপরে