NarayanganjToday

শিরোনাম

মাজহারুল ইসলাম রোকন

গণমাধ্যমকর্মী

ক’জন পারেন অদম্য সাহস নিয়ে হিরো আলম হতে?


ক’জন পারেন অদম্য সাহস নিয়ে হিরো আলম হতে?

কারো কাছে হিরো আলমের ফোন নম্বরটা থাকলে দিন। আমি বিস্মিত হয়েছি আকৃষ্ট হয়েছি এ কারনেই যে, এই একটা ব্যক্তি হাজারো মানুষের সমালোচনা সহ্য করে সামনে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন। অগোছালো অশুদ্ধ ভাষায় কথা বললেও বুঝা যায় তার বুকে অপ্রত্যুল সাহস আছে, যেখানে তার ভিতরে সততা নিষ্ঠা কর্মঠ সেটাও প্রমান পায়। এই সততাই তার বড় সাহস! ইতিমধ্যে টিভি টকশোতে তিনি বলেছেনও যারা সংসদে আছেন তাদের প্রত্যকের বিরুদ্ধে রিপোর্ট আসছে, কিন্তু আমার বিরুদ্ধে কোন রিপোর্ট আসেনি! টাস টাস করে মিডিয়ার সাংবাদিকদের তীর্যক প্রশ্নের জবাবও দিচ্ছেন। অনেকের কাছে হাস্যকর মনে হলেও হিরো আলম আমার কাছে রিয়েল হিরো! তার জীবনযুদ্ধে সে ইতিমধ্যে জয়ী হয়েছে। সমাজে হিরো আলম কয়টা আছেন যারা বার বার হেরেও নিচু থেকে উপরে ওঠার স্বপ্ন দেখেন এবং ওঠে আসেন?

খুচরা এটা সেটা বিক্রেতা থেকে সিডি ক্যাসেট বিক্রেতা, তারপর সেই সিডি দোকান ১৬ হাজার টাকায় কিনে নিজেই মালিক, তারপর ডিস লাইনের ব্যবসা, ডিস ব্যবসা থেকে নিজেই মিউজিক ভিডিও তৈরি করে আজকে হিরো আলম। তার একটা ইউটিউব চ্যানেলে পাঁচ লাখ দর্শক, আরেকটাতে ৮০ হাজার দর্শক! আমাদের মত কোটি কোটি মানুষ জীবন যুদ্ধে হেরে যাই কিংবা পিছু হটি! কিন্তু হিরো আলম তীল তীল করে গড়ে ওঠে। এই হিরো আলম সমাজে একটি ইতিহাস হয়ে থাকবে। মানুষকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা সহজ। কিন্তু হিরো আলম যেখান থেকে যতটুকু ওঠে এসেছে সেটা আর কজনইবা আমরা পারব? এ অদম্য সাহস সততা নিষ্ঠা পরিশ্রম কজনরাই আছে? আমরা পারিনা হিরো আলমরা পারবেন। তাই সমালোচনা নয় তার ওঠে আসার গল্পটা বুঝুন এবং চিন্তা করুন।

যে কথাটি আমি আমরা বলতে পারিনি। কিন্তু হিরো আলম বলেছেন, মমতাজ এমপি হতে পারলে আমি কেন পারবনা? চায়ের দোকানদার নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী হতে পারলে আমি কেন পারবনা? মাশরাফি ক্রিকেট খেলে রাজনীতিতে আসতে পারলে আমি কেন পারবনা? আমি খাটো? আমার চেহারা খারাপ তাই স্বপ্ন দেখতে পারবনা? সংসদে যারা আছেন কজনইবা যোগ্যতা নিয়ে আছেন? তাদের প্রত্যকের বিরুদ্ধে রিপোর্ট আছে, আমার বিরুদ্ধে কোন রিপোর্ট নাই! সমালোচনা কারা করে? যারা আমার সম্পর্কে জানেনা আমি কোথা থেকে ওঠে এসেছি।

হিরো আলম এও জানান, তার বাবা দুটি বিয়ে করেছিলেন। বৃষ্টির দিনে ছেলে ও মাকে বের করে দেন পিতা। যমুনা টিভির টকশোকে কষ্টের করুন কাহিনীও জানালেন তিনি। একবার দেখুন শুনুন বুঝুন চিন্তা করুন তার সততা, প্রতিভা।

আমার জীবনে কোন নায়ক নায়িকার সাথে দেখা করার আগ্রহ প্রকাশ বা নিজের ভিতরে আগ্রহ ইচ্ছা সৃষ্টি হয়নি। কিন্তু এই হিরো আলমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চাই। তাই তার ফোন নম্বরটা দরকার। তার সঙ্গে মিট করব এবং নির্বাচনে আমি একদিনের জন্য বগুড়া যাবো তার পক্ষে লিফলেট বিলি করে ভোট চাইবো ইনশাহআল্লাহ।

জাতীয়পার্টির মনোনয়ন পত্র ক্রয়ের পর হিরো আলমকে নিয়ে সমালোচনা চলছে। চলছে আলোচনাও। একটি বেসরকারি টিভির টকশোর উপস্থাপক তো রীতিমত হিরো আলম একজন মানুষ সেটাও বিবেচনা করেনি এবং তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে প্রশ্ন করলেন। তবুও বুকে সাহস নিয়ে জবাব দিয়ে যাচ্ছেন। আমরা কারো একটা সমালোচনা সহ্য করতে পারিনা। কিন্তু হিরো আলম লাখ লাখ মানুষের বকাঝকা গালিগালাজ কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েও সাহস নিয়ে নির্বাচন করতে চান। He is a real hero. এই ধৈর্য সহ্য কজনেরইবা আছে? কজনই পারে সমালোচনা সহ্য করে সামনে এগিয়ে যেতে? পারিনা। আমার কথাই বলি ফেসবুকে আমার কোন লেখায় দুএকজন সমালোচনা করলে সেই স্ট্যাটাজটিই ডিলেট করে দেই। কিন্তু হিরো আলম তো সহ্য করে চলেছেন। লেখক : মাজহারুল ইসলাম রোকন, গণমাধ্যমকর্মী

উপরে