NarayanganjToday

সীমান্ত প্রধান

কবি ও সংবাদকর্মী

মিতু মহা অন্যায়, অপরাধ করে ফেলেছে!


“২০১৬-তে আমাদের বিয়ে হয়। বিয়ের ‘কয়েক দিন আগে’ জানতে পারি- কিছুদিন আগে শোভন নামে চুয়েটের ৮ম ব্যাচের এক ছেলের সাথে ও হোটেলে রাত কাটায়; আর কত কি, লজ্জা লাগছে সব লিখতে।” এমন জানার পরও মিতুকে বিয়ে করেছিলেন ডা. আকাশ।

তাহলে মিতুর বহুগামিতাকে মেনে নিয়েই এই বিয়েটা করেছেন? বিয়ের পরও নাকি মিতু কারো কারো সাথে বিছানায় গিয়েছে! এ তথ্য বা প্রমাণ পাওয়া, জানার পরও মিতুর সাথে কেন থেকে গেলেন আকাশ? বলা হচ্ছে ৩৫ লাখ টাকা কাবিন ছিলো তাদের। ডিভোর্স দিলে এই টাকা দিতে হবে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, এতো টাকা কাবিন কেন? আকাশকে কি জোর করে মিতুর সাথে বিয়ে দেওয়া হয়েছিলো?

আকাশের আত্মহত্যার জন্য অনেকেই মিতুকেই দায়ী করছে। এ জন্য মিতুর ফাঁসি, শাস্তি দাবি করছে! অথচ আত্মহত্যার আগে মিতুকে মারধর করে স্বীকারোক্তি নেয়া হয়। সেটি ভিডিও করা হয়। সেই ভিডিওটি ভালো করে দেখলেই বোঝা যাবে মেয়েটির উপর আকাশের টর্চারের বিষয়টি।

বলা যায়, মারধর করে, জোর করেই তার কাছ থেকে স্বীকারোক্তি নেয়া হয়েছিলো। এমনকি, মিতুর ব্যক্তিগত জীবনের ছবিও ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে! এসব অন্যায় না?

মিতুকে আত্মহত্যার প্রোরচনাকারী দাবি করে মামলা হয়েছে। পুলিশ তাকে গ্রেফতারও করেছে। শোনা যাচ্ছে, অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে রিমান্ডেও নিতে পারে! মানুষের রিঅ্যাকশন দেখে মনে হচ্ছে, মিতু মহা অন্যায়, অপরাধ করে ফেলেছে! মিতু কি হত্যা করেছে? ধর্ষণ করেছে? রাষ্ট্র বিরোধী কাজ করেছে? না, এসব কিছুই করেনি। আকাশের ভাষ্যমতে, সে বহুগামিতা করেছে আর মিতুর বহুগামিতার ব্যাপারটি আকাশ বিয়ের আগেই জেনেছিলো। জানার পরও তাকে বিয়ে করে! কি মহান ভদ্রলোকটি।

যারা মিতুর শাস্তি চাই, শাস্তি চাই বলে চিৎকার করছেন তারা কেন করছেন, মিতু একজন নারী বলে? ভালো কথা, মিতু বহুগামী। মিতু অপরাধ করেছে তার ব্যক্তি স্বাধীনতা, অধিকার, ইচ্ছের প্রতিফলন ঘটাতে গিয়ে। কিন্তু এই আপনারা বলুন তো, যৌনপল্লী কিংবা আবাসিক হোটেলগুলোতে যৌনকর্মীদের কাছে কারা যাচ্ছে? নিশ্চয় কোনো না কোনো নারীর স্বামী, প্রেমিক? তাহলে এসব কারণে যদি বউয়েরা আত্মহত্যা করে তবে পরিস্থিতিটা কী হবে?

এ পর্যন্ত যতজন নারী স্বামীদের পরকীয়ার বলি হয়েছেন তাদের পক্ষ নিয়ে আপনারা কতজন লড়েছেন? খোঁজ নিয়ে দেখুন অসংখ্য ঘটনা এমন ঘটিয়েছেন পুরুষ। প্রতিমূহুর্ত স্ত্রী সাথে প্রতারণা করে অন্য নারীর প্রতি বুদ হয়ে থাকছেন অসংখ্য স্বামী। চূড়ান্ত পর্যায়ে গেলে মারধর, হত্যা, এমনকি আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটিয়েছে অসংখ্য স্ত্রী। সেসব নিয়ে আপনারা কজন প্রতিবাদ করেছিলেন? এইতো গেলো বছরের মাঝামাঝি সময়ে সিলেটে এক স্ত্রীকে যৌতুকের জন্য কুপিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হলো, সে নিয়ে কতজন কথা বলেছেন? গেন্ডারিয়াতে দুই বছরের বাচ্চা মেয়েটার ধর্ষণ ও হত্যার বিচার চেয়ে কজন কথা বলেছেন?

ডা. আকাশ আত্মহত্যা করেছে এটা দুঃখজনক। অবশ্যই হতাশার এবং গ্লানির এই ব্যাপারটি। কিন্তু এভাবে সে সমাধান না খুঁজে ভিন্ন কোনো পন্থা অবলম্বন করতে পারতেন। ডিভোর্স নিতে পারতেন অথবা সেপারেশন হতে পারতেন। আমাদের একটা কথা বোঝা উচিৎ, ভালোবাসা কখনো জোর করে ধরে বেঁধে রাখা যায় না। আর ভালোবাসার মানুষ যদি আমাকে রেখে অন্যত্র মজে তাহলে সেটা তার দোষ নয়, ব্যর্থতা আমার। হয়তো আমি সেভাবে তাকে ভালোবাসতে পারিনি অথবা কোথাও না কোথাও কোনো কোনো কিছুর ঘাটতি ছিলো তাই সে অন্যত্র মজেছে। এমন হলে নীরবে কুইট করাই তো শ্রেয়?

আকাশ মৃত্যুর আগে দাবি করেছিলেন তিনি মিতুকে শতভাগ ভালোবাসেন। আত্মহত্যা করে সে প্রমাণ তিনি দিয়ে গেছেন! না, এটা ভালোবাসার প্রমাণ নয়। ভালোবাসার প্রমাণ দিতে হয় বেঁচে থেকে, ভালোবেসে। আর এ জন্য এক সাথে থাকতেই হবে তাও কথা নয়।

প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। নারায়ণগঞ্জ টুডে-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য নারায়ণগঞ্জ টুডে কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

উপরে