NarayanganjToday

শিরোনাম

থানার ভেতরেই অভিযোগকারীকে পেটালেন মীর সোহেল!


থানার ভেতরেই অভিযোগকারীকে পেটালেন মীর সোহেল!

এবার ফতুল্লা থানার ভেতরে চাঁদ শিকদার সেলিম নামে একটি অভিযোগের বাদীকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলীর বিরুদ্ধে।  শুক্রবার (১৫ নভেম্বর) রাতে ফতুল্লা মডেল থানার ভেতরই এই ঘটনা ঘটেছে।

তবে, এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেছেন মীর সোহেল আলী। তার দাবি এসব মিথ্যা কথা।

অভিযোগ সূত্র জানায়, ফতুল্লার কুতুবপুরের মীর হোসেন মীরুর সন্ত্রাসী বাহিনী বৃহস্পতিবার বিকেলে কুতুবপুর বউবাজার এলাকায় মুরাদ নামে এক ব্যবসায়ীর মাথায় পিস্তল তাক হুমকি ধামকি দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। এ ঘটনায় এদিন রাতেই মুরাদের ভাই চাঁদ শিকদার সেলিম বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

চাঁদ সেলিম অভিযোগ করে বলেন, থানায় অভিযোগ দায়েরের পর এসআই মিজান ঘটনাস্থলে আসেন এবং পরদিন (শুক্রবার) রাতে আমাকে থানায় আসতে বলেন। সে মোতাবেক আমি থানায় প্রবেশ করছিলাম এমন সময় থানা থেকে বের হয়ে আসছিলেন মীর সোহেল আলী, শাহীনসহ আরও বেশ কয়েকজন। তখন মীর সোহেল আলী ও তার লোকজন থানার ভেতরই আমার উপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে আমাকে মারতে মারতে থানা থেকে রাস্তার নিয়ে আসে। আবার এখান থেকে টেনে ওসি তদন্তের রুমে নিয়ে যায় আমাকে লকাবে ঢুকিয়ে দিবে বলে।

তিনি আরও বলেন, ওসি তদন্তের রুমে নেওয়ার পর তিনি আমাকে উল্টো ধমকাচ্ছিলেন আর বলছিলেন ‘থানায় আপনার কাজ কি, কেন এসেছেন!’ এভাবে থানার ভেতরই যদি আমাদের উপর হামলা করে তাহলে বাইরে আমাদের নিরাপত্তা কতটুকু এবার বুঝে নেন।

এ ব্যাপারে মীর সোহেল আলীর সাথে তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ধাক্কাধাক্কির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। আমি সেরিমকে থানায় দেখে আমার অফিসে ডেকেছি কি হয়েছে তা বসে কথা বলার জন্য। এর বেশি কিছু হয়নি।

এদিকে এ প্রসঙ্গে জানতে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো. আসলাম হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এমন কোনো ঘটনা ঘটেছে কিনা জানা নেই। আমি সেসময় থানায় ছিলাম না। তবে, কুতুবপুরে দুই পক্ষের মধ্যে একটা গ্রুপিং হয়েছে। এতে করে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। তাদেরকে আগামীকাল থানায় ডেকেছি। যাতে করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি না ঘটে।

এদিকে সর্বশেষ পাওয়া খবর থেকে জানা গেছে, চাঁদ শিকদার সেলিমকে থানায় মারধর করার খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করেছে। এ নিয়ে তীব্র উত্তেজনা চলছে এলাকাজুড়ে। যে কোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

১৬ নভেম্বর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে