NarayanganjToday

শিরোনাম

ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে ক্ষমতাসীন দু গ্রুপের সংঘর্ষে যুবক খুন


ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে ক্ষমতাসীন দু গ্রুপের সংঘর্ষে যুবক খুন
প্রতীকি ছবি

সোনারগাঁয়ের মেঘনা নদীর অবৈধ বালু উত্তোলনের টাকার ভাগ-বাটোয়ার নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন।

পয়লা ডিসেম্বর রাতে উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের আনন্দবাজার আমিরাবাদ এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে নিহত যুবক জাকির হোসেন (৩২) বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের টেকপাড়া আমিরাবাদ গ্রামের মৃত আরজ আলীর ছেলে।

জাকির হোসেনের মরদেহ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা আছে বলে সোনারগাঁ থানা সূত্র জানিয়েছে। এছাড়াও এই ঘটনায় আহত ৫ জনকে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে সংঘর্ষে নিহত হওয়ার ঘটনায় পুরো এলাকাজুড়ে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো পরিস্থিতি এড়াতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবী হোসেন ও নুর মিয়ার ছেলে আমির হোসেনের নেতৃত্বে পৃথক দুটি গ্রুপ দীর্ঘদিন ধরে মেঘনা নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন করছে। রোববার সাড়ে এগারটার দিকে বালু উত্তোলনের টাকার ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে উভয় গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হলে এক পর্যায়ে তারা দেশি-বিদেশী অস্ত্র শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় গোলাগুলির ঘটনাও ঘটেছে বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, সংঘর্ষের ঘটনায় আমির গ্রুপের জাকির হোসেনকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এছাড়াও ওই সংঘর্ষের ঘটনায় টেকপাড়া আমিরাবাদ এলাকার নুর মিয়ার ছেলে আল-আমিন (৩৩), ইয়ানুসের ছেলে আবু হানিফ (৩১) ও আইয়ূব আলী মেম্বারের ছেলে সিরাজ (৩৭)সহ ৫ জন আহত হয়েছে। তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত জাকির হোসেনের বড় ভাই মনির হোসেন জানান, বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবী হোসেন ও আইয়ুব আলী মেম্বারের ছেলে সিরাজের নেতৃত্বে তার ভাই জাকির হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যাকান্ডে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে বিচার দাবি করছি।

এদিকে ঘটনা সম্পর্কে জানতে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নবী হোসেনের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও সেটি সচল পাওয়া যায়নি।    

সোনারগাঁ থানা পুলিশের-অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির জানান, জাকির হোসেন নামে একজন খুন হওয়ার পর পুলিশের একটি টিম ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। লাশ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

২ ডিসেম্বর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে