NarayanganjToday

শিরোনাম

মাদক ব্যবসার দ্বন্দ্বেই সুমন খুন, ফতুল্লায় মামলা দায়ের


মাদক ব্যবসার দ্বন্দ্বেই সুমন খুন, ফতুল্লায় মামলা দায়ের

ফতুল্লায় সুমন মিয়া ওরফে তোতলা সমুনকে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। শনিবার (১ সেপ্টেম্বর) রাতে নিহতের মা কিসমতি বেগম বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় এই মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে পশ্চিম মাসদাইর এলাকার বিপ্লব ওরফে শিপুল, তাঁর স্ত্রী শায়লা, হোটেল মাসমুদ ও সমুন ম-লকে। হত্যাকা-ের পর থেকে তাঁর সকলেই পলাতক রয়েছেন। পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। 

মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদের। তিনি বলেন, “আসামীদের গ্রেফাতারে অভিযান চলছে। শিগগিরই তাঁরা গ্রেফতার হবেন।”

শুক্রবার (৩১ আগস্ট) রাত ১০টর দিকে ফতুল্লার মাসদাইর এলাকায় পাওনা টাকা চাইতে গেলে বিপ্লব ওরফে শিপলু, তাঁর স্ত্রী শায়লা, হোটেল মাসুদ ও সুমন ম-ল সুমন মিয়াকে আটকে রেখে গায়ে পেট্রোল ঢেলে দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে খানপুর ৩‘শ শয্যা ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার (১ সেপ্টেম্বর) ভোরে সে মারা যায়।

এদিকে মামলায় নিহত সুমন মিয়াকে ঝুট ব্যবসায়ী এবং বিপ্লব ওরফে শিপলুকে মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে উল্লেখ করা হলেও স্থানীয়রা বলছেন দু’জনই পশ্চিম মাসদাইর পাকাপুল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তাঁদের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় একাধিক মামলাও রয়েছে এবং তাঁরা একাধিকবার মাদকসহ গ্রেফতারও হয়েছিলেন।

অপরদিকে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের একটি সূত্র নিশ্চিত করে জানায়, নিহত সুমন ওরফে তোতলা সুমন এবং বিপ্লব ওরফে শিপলুর বিরুদ্ধে ৫টি এবং চারটি করে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা রয়েছে। তাঁরা উভয়েই থানার তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী।

এদিকে স্থানীয় সূত্র বলছে, সুমন ওরফে তোতলা সুমন আগে গার্মেন্টে কাজ করলেও পরবর্তীতে মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে যায়। এলাকায় সে মাদক ব্যবসায়ী হিসেবেই পরিচিত। মূলত মাদক ব্যবসা নিয়েই বিপ্লব ও সুমনের মধ্যে দ্বন্দ্ব। মাদেক বিক্রির ৭০ হাজার টাকা বিল্পবের কাছে পাওনা ছিলো সুমন। আর এ টাকা আনার জন্যই সে রাতে সুমনের বাড়িতে গিয়েছিলো সুমন। তখনই বিপ্লব ওরফে শিপলু তাঁর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়।

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে