NarayanganjToday

শিরোনাম

শিক্ষার্থীদের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে : জেলা প্রশাসক


শিক্ষার্থীদের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে : জেলা প্রশাসক

নারায়ণগঞ্জ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে জেলা প্রশাসক মো. রাব্বী মিয়া বলেছেন, প্রতিষ্ঠানের সমস্যা মোকাবেলায় শিক্ষার্থীদের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

বুধবার ৫ ডিসেম্বর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ বেদৌরা বিনতে হাবিব -এর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করতে গেলে তিনি ওই কথা বলেন।

রাব্বী মিয়া সৃষ্ট সমস্যাটিকে প্রতিষ্ঠানের সমস্যা উল্লেখ করে বলেন, তোমাদের অধ্যক্ষ আসেননি কেনো? এটা প্রতিষ্ঠানের সমস্যা তার উচিৎ ছিলো সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়া। যেহেতু উনি প্রতিষ্ঠানের প্রধান তাই উনার উচিৎ ছিলো এখানে আসা। প্রথমত তার আমার সাথে এসে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা উচিৎ ছিলো। তাতে কাজ না হলে পরবর্তী সময়ে শিক্ষকের জন্য তোমরা আসতে পারতে। কিন্তু প্রথমেই তোমাদের ব্যবহার করা হবে কেনো? তোমাদের এই সময়ে পড়াশুনোতে মনোযোগ দেয়া উচিৎ।

এ সময় তিনি আরও বলেন, এখন নির্বাচনের সময় চলছে। দেশে অরাজকতা সৃষ্টিকারীরা এখনই সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করবে। এই সময়ে তোমাদের দেড় হাজার ছাত্রীর এভাবে রাস্তায় নেমে আসা ঠিক হয়নি। যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে যেতো তবে সেই দায়টা কার হতো। তোমরা যখন আসার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলে তখনই তোমার শিক্ষকদের উচিৎ ছিলো আমার সাথে যোগাযোগ করা। আমি প্রথমে তাদের সাথে আলোচনা সাপেক্ষেই বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করতাম।

জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে পরামর্শ হিসেবে এ কথাগুলো বললেও ভবিষ্যতে যেনো প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনে শিক্ষার্থীদের এ ধরনের ব্যবহার না করা হয় সে ধরনের কোনো নির্দেশনা জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে দেয়া হবে কীনা সেই প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের কিছু পরিষ্কার করেননি।

প্রসঙ্গত, মহিলা কলেজ সংলগ্ন সরকারি খাস জমি ও জয়নাল আবেদীনের সাইনবোর্ড দিয়ে ঘের দেওয়া জমিটুকু কলেজকে বন্দোবস্ত করার দাবি জানিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করে শিক্ষার্থীরা। একই সাথে অধ্যক্ষসহ তিন জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের জন্যও তারা দাবি জানান।

৫ ডিসেম্বর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে