NarayanganjToday

শিরোনাম

চৌরঙ্গী পার্কের সাত্তারসহ ডিবি পুলিশের ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা


চৌরঙ্গী পার্কের সাত্তারসহ ডিবি পুলিশের ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নারায়ণগঞ্জের এক ব্যবসায়ী ও জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ৮ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন রিনা ইয়ানমীন মর্জিনা। তিনি বরফকল এলাকার মাই লাইফ ক্যাফে’র মালিক জালাল উদ্দিনের স্ত্রী।

রোববার (২১ জানুয়ারি) সকালে নারায়ণগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে উপস্থিত হয়ে মর্জিনা ওই মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় চৌরঙ্গি পার্কের মালিক আব্দুস সাত্তার, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মাসুদুর রহমান, উপ-পরিদর্শক (এসআই) আমিনুল, বকুল, মিজান, সায়েম, সহকারি উপ-পরিদর্শক আজিজুর রহমান, দেওয়ান অনিক ও কনস্টেবল লুৎফর রহমানকে আসামী করা হয়।

মামলার আর্জিতে মর্জিনা দাবি করেন, চৌরঙ্গি পার্ক সংলগ্ন লিজের জমিতে ‘মাই লাইফ ক্যাফে’ নামে একটি ফাস্টফুডের তাদের দোকান রয়েছে। এই দোকানটি উচ্ছেদ করতে পার্কের মালিক আব্দুস সাত্তার নানা ভাবে ষড়যন্ত্র করে আসছিলো। ব্যর্থ হয়ে তিনি জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কিছু ব্যক্তিদের উস্কে দেন। ফলশ্রুতিতে ২৬ আগস্ট সন্ধ্যায় ডিবির কতিপয় সদস্যরা কুলকফি লাচ্ছি, বার্গার , ফুসকা খেয়ে টাকা না দেওয়ার জন্য বিভিন্ন অজুহাত তুলেন এবং নিজেদের পুলিশের লোক দাবি করে খাবারের বিল না দিয়ে উল্টো চাঁদা দাবি করেন। কিন্তু আমার ছেলে খাবারের বিল পুনরায় চাইলে তাকে তাদের কাছে থাকা শর্টগান দিয়ে এলাপাতাড়িভাবে মারধর করতে শুরু করে। খবর পেয়ে আমার স্বামী জালাল উদ্দিন ও আমি উপস্থিত হলে আমাদেরও মারধর করা হয়।

তিনি আরও দাবি করেন, ডিবি পুলিশের সদস্যরা আমার চুলের মুঠি ধরে টানা- হেচড়া এবং উলঙ্গ করে শ্লীতাহানি করে। এসময় তারা আমার তলপেট ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে লাথি ঘুষি মেরে রক্তাত্ব করে।

মর্জিনা আরও জানিয়েছে, পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ঘটনার বিষয় আপোষ মিমাংসা করে দেওয়ার আশ্বাস দিলেও এখনও পর্যন্ত এর কোনো সমাধা হয়নি। ফলে আমরা জীবনের নিরাপত্তা ও ন্যায় বিচারে আশায় আদালতের দ্বারস্থ হই।

প্রসঙ্গত, প্রসঙ্গত, ২৬ আগস্ট রোববার সন্ধ্যায় শহরের বরফকল এলাকার চৌরঙ্গি পার্ক সংলগ্ন ‘মাই লাইফ’ ফাস্ট ফুডের দোকানে নারায়ণগঞ্জ ডিবি পুলিশের মারধরের জালাল উদ্দিন, স্ত্রী রীনা ইয়াসমিন ও তাদের দুই ছেলে রবিন এবং আলামিন আহত হলে পরবর্তীতে জনতার হামলায় গুরুতর আহত হন নারায়ণগঞ্জ গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের এসআই মিজান ও সায়েমসহ আরো কয়েকজন।

তাঁদের মধ্যে এসআই মিজান ও সায়েমকে প্রথমে ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে এবং পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এছাড়াও আহত জালাল উদ্দিন ও তাঁর স্ত্রী রীনা ইয়াসমিনসহ দুই ছেলে রবিন এবং আলামিনকে প্রথমে ৩‘শ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাঁদের মধ্যে রীনাকে ছাড়া বাকি তিনজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

সৃষ্ট এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) নূরে আলমকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন সদর মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) কামরুল ইসলাম এবং ডিআই-১ সরাফতউল্লাহ। কমিটিকে দুই দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সহকারি উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আমিনুল বাদি হয়ে রোববার রাতেই সদর মডেল থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছেন। এতে ‘মাই লাইফ’ ফাস্টফুডের মালিক জালাল উদ্দিন, তাঁর স্ত্রী রীনা ইয়াসমীন এবং ছেলে রবীনসহ আরও অজ্ঞাত ৪০ থেকে ৫০ জনকে আসামী করা হয়েছে।

এছাড়া এ ঘটনায় চৌরঙ্গী পার্কের মালিক কাজী আব্দুস সাত্তারসহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এক পরিদর্শক, দুই এসআই ও দুই এএসআইসহ ১২ জনকে আসামী করে ২৮ আগস্ট নারায়ণগঞ্জে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসানের আদালতে মামলা দায়ের করেছিলেন ‘মাই লাইফ’ ফাস্টফুডের মালিক জালাল উদ্দিন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে সেপ্টম্বরের ২৫ তারিখের মধ্যে পুলিশ সুপারকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশও দিয়েছিলেন।

এছাড়াও সেদিনের ওই ঘটনার পর ২৭ আগস্ট জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পরিদর্শক মাসুদুর রহমান, এসআই মিজানুর রহমান ও আবু সায়েম, এএসআই আজিজুর রহমান, দেওয়ান তৌফিক, বকুল মিয়া, আমিনুল হক ও কনস্টেবল লুৎফর রহমানকে সাময়িক বরখাস্তও করা হয়েছিলো

আরও পড়ুন :

নারীসহ ৪জনকে পেটানোর অভিযোগে না.গঞ্জ ডিবি পুলিশের দুই এসআইকে মারধর
না.গঞ্জে ডিবি-ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষের ‘নাটের গুরু’ চৌরঙ্গী পার্কের সাত্তার! (ভিডিও)
চৌরঙ্গী পার্কের মালিক সাত্তারসহ ডিবি’র ৪ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা
বরফকলে ডিবি ও ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষে দুই মামলা
সেই জালালের গ্যারেজে ডিপিডিসি’র হঠাৎ অভিযান : নেপথ্যে অদৃশ্য হাত?
বরফকলে সংঘর্ষের ঘটনায় ডিবি পুলিশের ইন্সপেক্টরসহ ৮জন প্রত্যাহর

৩০ জানুয়ারি, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে