NarayanganjToday

শিরোনাম

রাতে সংঘর্ষ ভোরে গ্রেফতার এবং দুপুরে ছাড়


রাতে সংঘর্ষ ভোরে গ্রেফতার এবং দুপুরে ছাড়

রাতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, ভোরে গ্রেফতার এবং দুপুরে ছাড়া পেলেন বিবাদমান দুই গ্রুপের নেতা কাউন্সিলর কবীর হোসাইন ও সাবেক কাউন্সিলর কামরুল হাসান মুন্না। সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরের দিকে উভয় পক্ষ সৃস্ট ঘটনায় আদালতে আপোষনামা দাখিলের মাধ্যমে জামিনে মুক্ত হন।

এদিন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. কাউসার আলমের আদালতে গ্রেফতারকৃত কবীর হোসাইন, কামরুল হাসান মুন্নাসহ ২২জনকে হাজির করা হয়। পরে, তাদের উভয় পক্ষের আইনজীবীরা সৃষ্ট ঘটনায় আপোষনামা দাখিল করলে আদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।

এর আগে রোববার দিবাগত রাত ১২ টা থেকে নিতাইগঞ্জ এলাকায় থেমে থেমে সাবেক ও বর্তমান ওই দুই কাউন্সিলর গ্রুপের সাথে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষ চলে রাত দেড়টা পর্যন্ত। উভয় পক্ষ সংঘর্ষে আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্র ব্যবহার করে। স্থানীয়দের ভাষ্যমতে, সংঘর্ষ চলাকালে কয়েক রাউন্ড গুলি বর্ষণের ঘটনাও ঘটে। সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের কাউন্সিলর কবীর হোসাইনসহ অন্তত ১২ জনের মতো আহত হয়।

আহতদের মধ্যে নেওয়াজউল্লাহ, সুজন, সত্যজিৎ ও দূর্জয়ের নাম জানা গেছে। তাদের উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনার পর পুরো এলাকায় জুড়ে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, দক্ষিণ নলুয়া জামে মসজিদ কমিটি নিয়ে অনেকদিন থেকেই বর্তমান কাউন্সিলর কবীর হোসেন ও সাবেক কাউন্সিলর কামরুল ইসলাম মুন্নার মধ্যে বিরোধ চলছিলো। এরমধ্যে এদিন কবীরের ভাগিনা টিটুকে মারধর করে মসজিদ থেকে বের করে দেয় মুন্না পন্থী লোকজন। এ ঘটনায় একপক্ষ সদর থানায় রাতেই অভিযোগ জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে না পৌঁছাতেই উভয় গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এদিকে এ ঘটনায় উভয় পক্ষই সদর মডেল থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে এদিন ভোরে কাউন্সিলর কবীর হোসাইন ও কামরুল হাসান মুন্নাসহ ২২ জনকে গ্রেফতার করে সকালের দিকে আদালতে প্রেরণ করে।

অপরদিকে আদালতে জনৈক এক প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধির নির্দেশে এবং মধ্যস্থতায় উভয় পক্ষ নিজ আইনজীবীদের মাধ্যমে আপোষনামা দাখিল করলে আদালত থেকে তাদের জামিন দেওয়া হয়। তবে, পুলিশ এই ঘটনায় উভয়েে বিরুদ্ধে সাতদিন করে রিসান্ড প্রার্থনা করেন। আদালত তা নামঞ্জুর করে দেন বলে নিশ্চিত করেছেন উভয় পক্ষের আইনজীবী অ্যাড. খোকন সাহা।

তিনি জানান, বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. কাউসার আলমের আদলতে উভয় পক্ষ আপোষনামা দাখিল করলে আদালত জামিন মঞ্জুর করেন।

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে