NarayanganjToday

শিরোনাম

ফতুল্লায় ভিডিও দেখানোর ফাঁদে ফেলে শিশুর মুখ বেঁধে ধর্ষণ চেষ্টা


ফতুল্লায় ভিডিও দেখানোর ফাঁদে ফেলে শিশুর মুখ বেঁধে ধর্ষণ চেষ্টা

ফতুল্লায় ৭ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) দুপুরের দিকে তল্লা এলাকার নুর হোসেন চেয়ারম্যানের ভাড়া বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটে।

অক্রান্ত শিশুটিকে উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনার পরপরই পালিয়েছে অভিযুক্ত যুবক সুমন (২০)। অভিযুক্ত যুবক ওই একই বাড়ির ভাড়াটিয়া বাবুলের ছেলে এবং স্থানীয় পর্যায়ের চিহ্নিত একজন বখাটে।

এ ঘটনায় এদিন রাতেই শিশুটির মা গার্মেন্টকর্মী বাদী হয়ে সুমন ফতুল্লা মডেল থানায় ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের পিএসআই শুভ আহম্মেদ।

 তিনি জানান, শিশুটির মায়ের অভিযোগ তার স৭ বছরের মেয়েকে ধর্ষণ চেষ্টা চালিয়েছে তাদেরই পার্শ্ববর্তী ঘরের বখাটে যুবক সুমন। এ ঘটনায় ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ এনে শিশুটির বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। পরবর্তীতে মেডিক্যাল রিপোর্ট পাওয়া গেলে বাকী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মামলার বাদী ও আক্রান্ত শিশুটির মা নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে জানান, আমার মেয়েটি খুবই ছোট। সমুন তাকে ভিডিও দেখানোর কথা বলে তাদের ঘরে নিয়ে যায় এবং মুখ বেঁধে ধর্ষণ চেষ্টা চালায়। ঘটনাটি তিনি দেখতে পেয়ে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন ছুটে এলে বখাটে যুবকটি পালিয়ে যায়।

বাদীর দাবি, তার মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা চালাতে বল প্রয়োগ করা হয়। এতে তার মেয়ে রক্তাত্ব জখম হয়েছে। শিশুটিকে উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। এখানে তাকে চিকিৎসা শেষে রাতে মামলা দায়ের করি।

তিনি জানান, সুমন একজন চিহ্নিত বখাটে। সে এর আগেও এমন বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটিয়ে পাড় পেয়ে গেছে। বিচার না হওয়ার কারণে ছেলেটি দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠে। কাউকেই মানে না। মাস্তানি করে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

১৪ মার্চ, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে