NarayanganjToday

শিরোনাম

শামীম ওসমানের কর্মী সভায় এসপির পদত্যাগ দাবি


শামীম ওসমানের কর্মী সভায় এসপির পদত্যাগ দাবি

শামীম ওসমানের জরুরী কর্মী সম্মেলনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের পদত্যাগ দাবি করে স্লোগান দিয়েছে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। এসময় তার এসপি হারুনকে ‘ঘুষখোর’ বলেও আখ্যায়িত করেন।

শনিবার (৬ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে ইসদাইর বাংলা ভবনে কর্মী সম্মেলনে সাংসদ শামীম ওসমান বক্তব্য দিতে হাতে মাইক নিতেই তার অনুসারিরা প্রায় সকলেই একযোগে স্লোগান ধরেন। এ স্লোগানে তারা নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপারের প্রতি নিজেদের ক্ষোভ উগড়ে দেন।

সভায় উপস্থিত প্রত্যক্ষদর্শী জানায়, সাংসদ শামীম ওসমান যখন বক্তব্য দিতে হাতে মাইক্রোফোন নেন, তখনই তার অনুসারি নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ ভাবে স্লোগান ধরেন। এ স্লোগানের মধ্যে ছিলো, ‘ঘুষখোর এসপির পদ্যতাগ চাই’ ‘মুক্তিযোদ্ধাদের এই নারায়ণগঞ্জ গাজীপুর হতে দেব না’ ‘আমরা এই ঘুষখোর অফিসারের পদত্যাগ চাই’সহ আরও কিছু স্লোগান দেওয়ার চেষ্টা করা হলে তাদেরকে নিবৃত করেন শামীম ওসমান।

শামীম ওসমান তার বক্তব্যে বলেন, কেউ যতি মনে করেন, নারায়ণগঞ্জের এই কাউন্সিলকে ফাঁসাবো, ওর থেকে চাঁদাবাজি করবো। ওরে ফাঁসাবো। বাস থেকে চাঁদা খাবো। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদাবাজি করবো। ওটা কইরেন না। নারায়ণগঞ্জে এটা হবে না। সাংবাদিকেরা লিখবে, প্রশ্ন করবে আপনি তার কণ্ঠরোধ করবেন। কইরেন না। এটা প্রশাসনের কাজ না। এটা করলে সরকারের উপর দোষ পড়বে।

তিনি আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জের মাটিতে যদি কাউরে ক্ষতি করার চেষ্টা করা হয় তাহলে একটা সেকেন্ডের জন্য কাউকে টিকতে দেওয়া হবে না। খোঁচা দিয়েন না। খোঁচা দিলে স্ফুলিঙ্গ জ্বইলা গেলে খোকন সাহাতো দূরের কথা আমি শামীম ওসমানও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আটকায়ে রাখতে পারবো না। তবে একটা অনুরোধ করবো, বাইরের মানুষরে দোষ দিয়েন না। তারা না বুইঝা করছে। ঘরের মানুষদের দোষ দেন। মোশতাকদের দোষ দেন।

প্রসঙ্গত, বেশ কয়েকদিন ধরেই নারায়ণগঞ্জের পরিস্থিতি ক্রমশঃ ঘোলাটে হয়ে উঠছিলো। অবস্থা দেখে এটুকু অনুমেয় যে, সাংসদ শামীম ওসমানের সাথে এসপি হারুন অর রশীদের দূরত্ব রয়েছে। এসপিও ছাড় না দেওয়ার মানসিকতা নিয়ে হার্ডলাইনে যান। এরমধ্যে শাহ নিজামের বিরুদ্ধে জিডি, তানভীর আহম্মেদ টিটুর বিরুদ্ধে মামলা, সব মিলিয়ে সাংসদ অনুসারীরা গেল কিছুদিন ধরে একটু চিন্তিত।

৬ এপ্রিল, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে