NarayanganjToday

শিরোনাম

জয়নাল মোল্লাকে পলাশ ‘আমরা ঘরে বসে লেবেনচুষ খাবো না’


জয়নাল মোল্লাকে পলাশ ‘আমরা ঘরে বসে লেবেনচুষ খাবো না’

আগামী পনের তারিখের মধ্যে লক্ষ্মীনারায়ণ কটন মিলের শেয়ার হোল্ডারদের বসত ছাড়ার আল্টিমেটাম দিয়েছে নীট কর্নসানের মালিক জয়নাল আবেদীন মোল্লা। তিনি মিলটির মালিক দাবি করে এই আল্টিমেটাম দেন। আর এ নিয়ে ক্ষুব্ধ-বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে নারায়ণগঞ্জের অন্যান্য শ্রমিকেরা। এর প্রতিবাদে নগরীতে মানববন্ধন করেছেন তার।

বুধবার (১২ জুন) সকালের দিকে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে শেয়ার হোল্ডার স্বার্থ রক্ষা সংগ্রাম কমিটির ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক লীগ নেতা কাউসার আহম্মেদ পলাশ।

এদিকে জয়নাল আবেদীন মোল্লার পক্ষ থেকে শ্রমিকদের উচ্ছেদে যে সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছিলো পলাশ এর প্রতিবাদ করে প্রশাসনকে পাল্টা আল্টিমেটাম দিয়েছেন। তিনি প্রশাসনের প্রতি হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে দিয়ে বলেন, আগামী ১৫ তারিখের পূর্বে জয়নাল আবেদীন মোল্লাকে গ্রেফতার করতে হবে।

পলাশ বলেন, জয়নাল আবেদীন মোল্লা যেসব শেয়ার হোল্ডারদের কাছ থেকে শেয়ার কিনেছেন সেটি সম্পূর্ণ অবৈধ। কেননা, সরকার শ্রমিকদের নামে লক্ষ্মীনারায়ণ মিল লিখে দেওয়ার সময় সেখানে স্পষ্ট করেই বলে দিয়েছিলেন, দলিলে স্পষ্ট করেই লেখা আছে বহিরাগত কারো কাছে শেয়ার হস্তান্তর করা যাবে না, বিক্রি করা যাবে না। তারপরও জয়নাল আবেদীন মোল্লা ওই মিলের মালিক কী করে হোন?

জয়নাল আবেদীনের কর্মকা- অনিয়মতান্ত্রিক আখ্যায়িত করে পলাশ বলেন, আপনি মিলের চেয়ারম্যান হলেন কীভাবে, কোনো এজিএমের মাধ্যমে তো আপনাকে চেয়ারম্যান করা হয়নি। আপনি তো ওই মিলের শ্রমিকও নন, শেয়ার হোল্ডারও নন তাহলে চেয়ারম্যান দাবি করেন কীভাবে? আপনাকে আনা হয়েছিলো বিনোয়াগ করার জন্য। কিন্তু আপনি রাতের আঁধারে শত শত কোটি কোটি টাকা লুটপাট করেছেন। শ্রমিকদের উপর নির্যাতন করছেন। নারীদের প্রতি নির্যাতন করছেন। শিশুদের স্কুলেও যেতে দিচ্ছে না জয়নাল আবেদীন গংরা। কিন্তু এটা স্বাধীন বাংলাদেশ, জননেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। এখানে জোরজুলুম অত্যাচার নির্যাতন চলবে না।

পলাশ বলেন, শেখা হাসিনা মালিক বানিয়েছে শ্রমিকদেরকে। এই সরকার মালিক বানিয়েছে শ্রমিকদেরকে। আজকে আপনি কে প্রকাশ্য দিবালোকে মাইকে ঘোষণা দিয়ে ডাকাতদের মতো শ্রমিকদের ১৫ তারিখ পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়ে বসতি ছাড়ার নির্দেশ দেন। তাকে এত বড় সাহস কে দিলো?

জয়নাল আবেদীন মোল্লাকে হুঁশিয়ারী প্রদান করে আল্টিমেটাম দিয়ে পলাশ বলেন, ১৫ তারিখের মধ্যে শ্রমিকদের মিল ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। আমি আপনাকে বলতে চাই, ১৫ তারিখের মধ্যে একটা শ্রমিক, একটা শেয়ার হোল্ডারের গায়ে যদি হাত তুলেন, আপনি যদি ওই সীমানার মধ্যে প্রবেশ করেন তাহলে এই রাজপথে আগুন জ্বলবে।

জাতীয় শ্রমিক লীগ, শ্রমিক ফেডারেশন এবং নারায়ণগঞ্জের ৭৪ শ্রমিক সংগঠনের পক্ষে দায়িত্ব নিয়ে কঠোর হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে পলাশ বলেন, যদি শেয়ার হোল্ডারদের উপর আঘাত আসে, যদি তাদের হক কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হয় তবে, এই নারায়ণগঞ্জে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে আর সেইসব কর্মসূচিতে যা যা ঘটবে তার সমস্ত দায় দায়িত্ব নিতে হবে এই জয়নাল মোল্লার।

আগামী পনের তারিখের আগেই জয়নাল আবেদীন মোল্লাকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে জাতীয় শ্রমিক লীগের ওই নেতা বলেন, ডাকাতের মতো যে ব্যক্তি মালিক না হয়েও মাইকিং করে প্রকাশ্যে দিবালোকে শ্রমিকদের উচ্ছেদ করার ঘোষণা দেওয়ার ক্ষমতা রাখে আমরা ওই ১৫ তারিখের আগেই তার গ্রেফতার দাবি করছি। ওই জয়নাল মোল্লাকে ১৫ তারিখের আগেই গ্রেফতার করতে হবে। নয় তো এর প্রতিবাদে আমরা নিয়মতান্ত্রিক ভাবে যা যা কর্মসূচি দেওয়ার দরকার তাই দেব।

পলাশ দাবি করেন, জয়নাল আবেদীন মোল্লার নেতৃত্বে শেয়ার হোল্ডারদের, তাদের পরিবারের মা বোনকে কীভাবে অত্যাচার নির্যাতন করা হয়েছে সেসব তথ্য প্রমাণ রয়েছে। এত অত্যাচার নির্যাতনের পরও জয়নাল আবেদীন মোল্লা টাকা দিয়ে ওই এলাকায় কিছু কুকুর বিড়াল রেখেছে। সেসব কুকুর বিড়াল দিয়ে শ্রমিকদের অত্যাচার নির্যাতন করছে। কিন্তু এই দেশে কখনো কুকুর বিড়াল দিয়ে কোনো আন্দোলন দমানো যায়নি, যাবেও না। আমরা প্রশাসনের প্রতি দাবি করছি, আলোচনার মাধ্যমে শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার, মালিকানা যেন ফিরিয়ে দেওয়া হয়। নয়তো এরপরও যদি শ্রমিকদের উপর অত্যাচার নির্যাতন করা হয় তাহলে আমরা ঘরে বসে লেবনচুষ খাবো না।

এদিকে নির্যাতিত শ্রমিকেরা দাবি করেছেন, সাবেক পরিচালনা পর্ষদ মিলটিতে একজন বিনিয়োগকারী নিয়োগের কথা বলে প্রতারণার মাধ্যমে ৩৮২ জনের শেয়ার হাতিয়ে নিয়ে নিট কনসার্ন গ্রুপের কাছে হস্তান্তর করে। ১৮ একর ৬৫ শতাংশের উপর গড়ে ওঠা শত বছরের পুরনো এই মিলটির মূল্য ৭০০ কোটি টাকা হলেও মাত্র ৩৫ কোটি টাকায় মিলটি দখলে নেয়ার চেষ্টা করছে নিট কনসার্ন গ্রুপের জয়নাল আবেদীন মোল্লা ও তার লোকজন। ৫৩ জন শেয়ারহোল্ডার শেয়ার বিক্রি করতে রাজী না হওয়ায় তাদের নির্যাতন চলছে। আগামী ১৫ তারিখ উচ্ছেদের আলটিমেটাম দেয়া হয়েছে। যদি শেয়ারহোল্ডারদের উচ্ছেদ করা হয় তাহলে কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করার হুঁশিয়ারি দেন বক্তারা।

১২ জুন, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে