NarayanganjToday

শিরোনাম

একসাথে মিলেমিশে কাজ না করলে না.গঞ্জের উন্নয়ন হবেনা : নবাগত ডিসি


একসাথে মিলেমিশে কাজ না করলে না.গঞ্জের উন্নয়ন হবেনা : নবাগত ডিসি

নির্বাচিত প্রতিনিধি এবং সংসদ সদস্যদের সাথে আমি মিলেমিশে কাজ করতে চাই। কেননা একসাথে মিলেমিশে কাজ না করলে নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ন হবেনা বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করা জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন। 

সোমবার (২৪ জুন) বিকেলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ইলেকট্রনিক্স, প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি ওই মন্তব্য করেন।

এসময় তিনি আরো বলেন, কথা আর কাজে মিল থাকলে শ্রদ্ধাটা এমনিতেই চলে আসবে। অতীতে রহমত উল্লাহ নারায়ণগঞ্জের মহাকুমা প্রশাসক হিসেবে ছিলেন। তার বিদায়ে শীতলক্ষ্যার পাড়ে হাজার হাজার মানুষ অশ্রæ ফেলেছে। নারায়ণগঞ্জের প্রেক্ষাপটে তিনি রহমতউল্লাহ ইনস্টিটিউট গড়ে তুলেছিলেন। গত ৬ বছর এটির কোন নির্বাচন হয়না। রহমতউল্লাহ ইনস্টিটিউটের একটি ভবন তিনদিন আগে সিটি করপোরেশন ভেঙে দিয়েছে। তবে এর বদলে প্রায় ১৭ শতাংশ জায়গা দিয়েছে। সেখানে একটি বহুতল ভবন তৈরি করে দোকান ভাড়া দেয়া হয়েছে। আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী জানতেও পারিনা সেই ভাড়াটি কোথায় যায়। রহমতউল্লাহ ইনস্টিটিউটের ফান্ডটি ভালোভাবে যাতে তদারকি করা হয়। এবং সেখানে একটি লাইব্রেরী চালু করা গেলে রহমত উল্লাহ ইনস্টিটিউটের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে। নারায়ণগঞ্জ ফাউন্ডেশন থেকে জেলার শিক্ষার্থীদের যে বৃত্তি দেওয়া হতো সেটি আবারও যাতে চালু করা হয়। এই ফাউন্ডেশনের বর্তমান অবস্থান কেউ জানেনা। 

অপরদিকে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, শিল্পনগরী হওয়ায় চট্টগ্রামের পর নারায়ণগঞ্জের রাজস্ব সর্বাধিক। তবে নারায়ণগঞ্জ এখনো বিশেষায়িত জেলা হতে পারেনি। জেলা প্রশাসকের কাছে অনুরোধ থাকবে নারায়ণগঞ্জ বিশেষায়িত জেলা হিসেবে যাতে স্বীকৃতি পায়। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন হলেও এখনো মেট্রোপলিটন সিটি হতে পারেনি। রংপুর, গাজীপুর মেট্রোপলিটন সিটি হলেও গুরুত্বের দিক দিয়ে নারায়ণগঞ্জ এখনো মেট্রোপলিটন সিটি হতে পারেনি।  

নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি (এনইউজে) আবদুস সালাম বলেন,  আমরা ভালোকে ভালো, খারাপকে খারাপ, সাদাকে সাদা আর কালোকে কালো বলতে চাই। এক্ষেত্রে যদি কারো উপরে কিছু পড়ে যায় তাহলে এটি দেখার দায়িত্ব আমরা নেইনা। পেশাদার সাংবাদিকরা কখনো ব্যক্তিগত প্রয়োজনে আপনার দ্বারস্থ হবেনা। কিন্তু আমরা চাই স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা। নারায়ণগঞ্জে কিছু সংকট রয়েছে। ফুটপাত দখলমুক্ত করা, বালু সন্ত্রাসীরা বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষা, মেঘনা, ধরেশ্বরীতে বেপরোয়া। এরসাথে যারা জড়িত তাদের যাতে ছাড় দেয়া না হয়। আমরা নারায়ণগঞ্জে সুস্থ্য ধারার পরিবেশ, বাসযোগ্য পরিবেশ চাই। এজন্য এই নারায়ণগঞ্জ শহরকে নিজের শহর ভেবে একটি পরিকল্পিত নগরী গড়ার জন্য কাজ করবেন এটিই আমাদের প্রত্যাশা। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জের সর্বত্র সন্ত্রাসের যে অবস্থান, ছিনতাইকারী, ঝুট সন্ত্রাস, খুনাখুনি এবং নারায়ণগঞ্জকে লাশের ডাম্পিং স্টেশন যাতে না বানাতে পারে তাঁর বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের কঠিন অবস্থান প্রত্যাশা করি।  নারায়ণগঞ্জ শহরে একাধিক শাসন চলে। জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সিটি করপোরেশন এবং সাংসদের অবস্থানের সম্মিলিত সমন্বয় ঘটানো সম্ভব হলে একটি সুন্দর নারায়ণগঞ্জ পাবো। 

নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু সাউদ মাসুদ বলেন, প্রশাসন ও সাংবাদিকদের সাথে যাতে সুসম্পর্ক থাকে এটি কামনা করি। পেশাদারিত্বে কারণে সেই সম্পর্কটি আমরা রাখতে পারিনা। এমন কিছু যাতে না হয় যেটি প্রশাসনের বিপক্ষে আমাদের অবস্থান নিতে হয়।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-স্থানীয় সরকার বিভাগ নারায়ণগঞ্জের উপ-পরিচালক আলতাফ হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট যুথিকা সরকার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) রেহানা আক্তার কলি, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহবুবুর রহমান মাসুম, সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান শামীম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাফিজ আশরাফ, আবু সাউদ মাসুদ, নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সালাম, সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন পন্টি, বৈশাখী টেলিভিশনের রফিকুল ইসলাম রফিক, প্রথম আলোর মজিবুল হক পলাশ, মানবজমিনের বিল্লাল হোসেন রবিন, মাছরাঙার জুয়েল হোসেন, একাত্তর টেলিভিশনের সোহেল, মানবকন্ঠের নাহিদ আজাদ, সমকালের এম এ খান মিঠু, কালের কন্ঠের দিলীপ কুমার মন্ডল, বাংলাদেশ প্রতিদিনের রোমান চৌধূরী সুমন সহ অন্যান্ন ইলেকট্রনিক, প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।  
 

উপরে