NarayanganjToday

শিরোনাম

চাষাড়ায় একসঙ্গে তিন সন্তান প্রসব


চাষাড়ায় একসঙ্গে তিন সন্তান প্রসব

নগরীর মেডিস্টার হসপিটালে এক সঙ্গে তিন সন্তান প্রসব করেছেন এক প্রসূতি। শুক্রবার (৩০ আগস্ট) বেলা ১১ টার দিকে নাসরিন আক্তার নামে এই প্রসূতি এক ছেলে ও দুই মেয়ে এক সঙ্গে প্রসব করেন।

তিনি পাবনার শোভানগর উপজেলার তারাবাড়িয়া গ্রামের আব্দু সামাদের স্ত্রী। তারা সদর উপজেলার সৈয়দপুর ফকিরবাড়ি এলাকায় বসবাস করেন। আব্দুস সামাদ মুন্সিগঞ্জের মোক্তারপুরের প্রিমিয়ার সিমেন্ট ফ্যাক্টরিতে কর্মরত।

আব্দুস সামাদ জানান, তাদের দাস্পত্য জীবন ৭ বছরের। তাদের ঘরে এর আগে কোনো সন্তান ছিলো না। ৬ বছর পর তার স্ত্রী একসঙ্গে তিন সন্তান প্রসব করেন। এতে তিনি আনন্দিত।

তিনি আরও জানান, এদিন সকাল আটটার দিকে তার স্ত্রীর প্রসব বেদনা উঠলে শহরের চাষাড়া মেডিস্টার ক্লিনিকে নিয়ে আসেন। এখানে আনোয়ার খান মডার্ণ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের গাইনী ও অবস্ বিভাগের সহকারি অধ্যাপক, প্রসূতি ও স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শারমিন সিদ্দিকা রুমকির তত্ত্বাবধানে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে তিনটি সন্তানের জন্ম দেন নাসরিন।

বর্তমানে তিন সন্তান ও তাদের মা নাসরিন সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক ডা. শারমিন সিদ্দিকা।

তিনি জানান, সন্তান তিনটির মধ্যে দুইটি মেয়ে ও একটি ছেলে। তাদের ওজন যথাক্রমে প্রথম মেয়ে ২.৭ কেজি, দ্বিতীয় ছেলে ২.৬ কেজি এবং তৃতীয় মেয়ে ২ .৫ কেজি। বর্তমানে মা নাসরিনসহ তিনটি সন্তানই সুস্থ রয়েছেন বলে জানান ডা. শারমিন সিদ্দিকা।

ডা. শারমিন সিদ্দিকা বলেন, যমজ সন্তান প্রসবের বিষয়টি খুব সাধারণ। একসাথে তিন সন্তান প্রসবের বিষয়টি তেমন একটা হয় না। ৩৭ সপ্তাহ পার করার পর এই প্রসূতির সন্তান প্রসব করেন। একটি বাচ্চা উল্টে ছিল, নরমাল প্রাকটিস করতে গেলে বাচ্চা লক হয়ে যাবার সম্ভবনা ছিল। এ কারণে সিজার করতে বাধ্য হয়েছি।

দাম্পত্য জীবধেনর সাত বছরের মাথায় সন্তানের মুখ দেখলেন আব্দুস সামাদ। তাও আবার একসাথে তিন সন্তান। যারপরনাই আনন্দিত তিনি। সামাদ বলেন, বিয়ের ৭ বছর পর আমার ঘরে তিনটি সন্তান ভূমিষ্ট হওয়ায় আমি ভীষণ খুশি হয়েছি। এ আনন্দ বলে বোঝানো সম্ভব নয়। এখনও বাচ্চাদের নাম রাখা হয়নি। তাদের মা এখন হাসপাতালে রেস্টে আছেন। তাকে বাড়িতে নিয়ে তারপর সব আনুষ্ঠানিকতা হবে।

৩০ আগস্ট, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে