NarayanganjToday

শিরোনাম

শিশু কন্যার বিয়েতে ম্যাজিস্ট্রেটের হানা, ভয়ে আসেনি বর


শিশু কন্যার বিয়েতে ম্যাজিস্ট্রেটের হানা, ভয়ে আসেনি বর

বয়স তার খুব বেশি নয়। মাত্র ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ছে। শারীরিক গড়নে এখনও শিশু। তারপরও এই শিশু কন্যার বিয়ের আয়োজন করেছে তার পরিবার। বিয়ের সব কিছু ঠিকঠাক। আমন্ত্রিত অতিথিরা আসছে। কিছুক্ষণের মধ্যে বরযাত্রীও আসবে।

তবে, এতে বাধ সাধে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উজ্জ্বল হোসেন। তিনি বর আসার পূর্বেই বিয়ে বাড়িতে হানা দেন। বাল্য বিয়ে নিষিদ্ধ। তাই তার এই আগমণ। বন্ধও করে দেন এই বিয়ে। ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তাকে বিয়ে দেওয়া যাবে না, এই মর্মে অভিভাবকদেরও কড়া নির্দেশনা প্রদান করেন তিনি।

ঘটনাটি ঘটেছে ৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় আড়াইহাজার উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের চারিগাঁও গ্রামে। শিশু কন্যা উর্মির বিয়ের আয়োজন চলছিলো এখানে। সে চারিগাও গ্রামের ফিরোজ মিয়ার মেয়ে ও স্থানীয় স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী।

পার্শ¦বর্তী চারিগাঁও মেরারটেক গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে শাহাদাতের সাথে উর্মির বিয়ে ঠিক করেন তার পরিবার। সব কিছু ঠিকঠাক। বর আসবে। কাজী বিয়ে পড়াবে। কন্যা বিদেয় হবে। এমনই কথা ছিলো। সে কথা অনুযায়ে বিয়ের আয়োজনও সম্পন্ন। হওয়ার কথা ছিলো ।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উজ্জ্বল হোসেন এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বাল্য বিয়ে একটি অপরাধ। সরকার থেকেও বাল্য বিয়ে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ১৮ বছরের পূর্বে কোনো মেয়ের বিয়ে দেওয়া মানেই দ-নীয় অপরাধ।

তিনি আরও বলেন, আমরা উর্মির অভিভাবকদের বুঝিয়ে বিয়ে বন্ধ করে দিয়েছি। তার ১৮ বছর পূর্ণ হলে বিয়ে দিবেন বলে উর্মির অভিভাবক মুচলেকাও দেন। তবে, প্রশাসনের অভিযানের খবর পেয়ে বরযাত্রী কেউ আর আসেনি। আমরা চাই প্রতিটি এলাকাতেই বাল্য বিয়ে বন্ধ হোক। সরকারও এ ব্যাপারে সচেতন।

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে