NarayanganjToday

শিরোনাম

বন্দরে মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ ওয়ার্ডবাসী


বন্দরে মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ ওয়ার্ডবাসী

মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ বন্দরের ২০, ২২ ও ২৩নং ওয়ার্ড এলাকার বাসিন্দারা। এতে বাড়ছে মশা বাহিত বিভিন্ন রোগের শঙ্কা। মশার উৎপাত থেকে রক্ষা পেতে দিনের বেলায় ও মশার কয়েল ব্যবহারে মুক্তি মিলছে না বাসিন্দাদের। 

মশা নিধনে প্রতিদিন সিটি কর্পোরেশনের ওষুধ ছিটানোর কথা থাকলেও মাসে একবারও দেখা মেলেনা কর্মীদের। এতে চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছে বাসিন্দারা।

ওয়ার্ডবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানিয়েছে,মশার উৎপাত মাত্রাতিরিক্ত বেড়েছে। রাতের পাশাপাশি দিনের বেলায় ও কয়েল ব্যবহার করতে হচ্ছে। মশা নিধনে সিটিকর্পোরেশনের কোনো ভূমিকাই যেন নেই। ঠিকমতো ওষুধ দেয়া হচ্ছেনা। দিনদিন মশার উপদ্রব বৃদ্ধি পাওয়ায় মশাবাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

নাসিক ২১নং ও ২২নং ওয়ার্ড এলাকা প্রায় ৭০ থেকে ৮০ হাজারের অধিক মানুষের বসবাস। অথচ কাক্ষিত সেবা না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ বাসিন্দারা। মশা নিধনে ওষুধ ছিটাতে প্রতি ওয়ার্ডে পাঁচজন করে কর্মী দিয়েছে সিটি কর্পোরেশন। নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে এসব কর্মীকে ওয়ার্ড কাউন্সিলরের আওতাধীন করা হয়েছে। তবে অভিযোগ রয়েছে,এসব কর্মীদের তদারকি করলেও কাউন্সিলরদের কথা শুনছেন না তারা। আর এ সুযোগে তাদের ইচ্ছে মতো ওষুধ ছিটাচ্ছে কর্মীরা।

জানাযায়,মশা নিধনে দু’ধরনের ওষুধ ব্যবহার করা হয়। সকালে লার্ভিসাইড নামক ওষুধ ছিটানো হয় আর বিকালে এডালার্ভিসাইড নামক ওষুধ যা ধোঁয়ার সঙ্গে দেয়া হয়। তবে বাস্তবে এসব ওষুধ ঠিক মতো ছিটানো হচ্ছে না বলে অভিযোগ
এলাকাবাসীর।

সরেজমিনঘুরে দেখা যায়, নাসিক ২০,  ২১নং ওয়ার্ড ও ২২নং ওয়ার্ড এলাকায় বিভিন্ন সড়কে ময়লা পানি জমে আছে। সেসব ময়লা পানিতে মশার বংশ বিস্তার হচ্ছে। সড়কের পাশে নালা,ড্রেন ও ময়লার স্তুপ। বাড়ির আঙ্গিনা সহ বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হচ্ছে ভয়ঙ্কর সব মশার বিস্তার।বিশেষ করে রুপালী আবাসিক এলাকা দড়িসোনাকান্দা,পরাজকিান্দাবেপারীপাড়া,সোনাকান্দা,ছালেনগর,বাড়ইপাড়া,শাহীমসজি,পুকুরপাড়,খালপাড়,বাড়ইপাড়া,রাজবাড়ী,নুরবাগ,খারবাড়ী,মোল্লাবাড়ীএলাকায়মশারউপদ্রব বেড়েছে।

নাসিক ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হান্নান সরকার বলেন,মশা নিধনে সিটি কর্পোরেশনের পর্যাপ্ত ওষুধ রয়েছে তবে জনবল সংকট রয়েছে।তাই তারা ঠিকমত ঔষদ ঠিকমত ছিটাতে পারছেনা। তবে আমরা ওয়ার্ডবাসীকে সেবা দিতে কখনো কার্পন্যতা করি নাই।

এদিকে ২২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সুলতা নআহমেদ ভূইয়ার সাথে মোবাইল ফোনে ওয়ার্ডবাসী আলাপ করার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ করেছেন।

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯/এমএ/এনটি

উপরে