NarayanganjToday

শিরোনাম

শহরে ট্রেন থামিয়ে দিয়ে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ ঠেকাতে পারেনি উচ্ছেদ


শহরে ট্রেন থামিয়ে দিয়ে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ ঠেকাতে পারেনি উচ্ছেদ

অবশেষে অতিরিক্ত পুলিশ ডেকে দুই নং গেটের থান কাপড়ের মার্কেট উচ্ছেদ অভিযান চালাচ্ছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯ টা থেকে এই উচ্ছেদ শুরু হয়েছে।

এর আগে সাড়ে ৮ টার দিকে উচ্ছেদ ঠেকাতে বিক্ষোভ শুরু করে কয়েকশ ব্যবসায়ী। তারা সড়ক ও রেল পথ অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। বিক্ষোভকারীরা রেল লাইনের উপর উঠে বিক্ষোভ শুরু করে সকাল পৌনে নয়টার দিকে। এসময় তারা একটি চলন্ত ট্রেন থামিয়ে দেন। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনটি পৌনে নয়টার দিকে নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশনে প্রবেশ করছিলো।

এদিকে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভের কারণে দুই নং গেটে উভয় দিককার যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ভোগান্তিতে পড়ে স্কুল-কলেজ ও অফিসগামী মানুষ। পরে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে রেল কর্তৃপক্ষ জেলা পুলিশের সরনাপন্ন হলে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেন। এক পর্যায়ে অতিরিক্ত পুলিশের তৎপরতায় কোনো রকম গোলযোগ ছাড়াই রাস্তা থেকে সরে যান বিক্ষুব্ধ ব্যবসাীয়রা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা সূত্র জানায়, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ে বৃহস্পতিবার সকাল দিকে দুই নং গেট এলাকার থান কাপড় মার্কেট উচ্ছেদ চালানোর কথা রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের। সে লক্ষ্যে রেলের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। সাথে নিয়ে আসেন একটি ভেকু। এই উচ্ছেদ ঠেকাতে আগে থেকেই কয়েক শ ব্যবসায়ী অবস্থান নেন দুই নং রেলগেট। সে লক্ষ্যে তারা সকাল পৌনে নয়টার দিকে রেলগেটের বার ফেলে দিয়ে উভয় দিককার যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন। পরবর্তীতে বিক্ষুব্ধ ব্যবসাীয়রা রেল লাইনের উপর উঠে বিক্ষোভ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রেন আটকে দেন তারা।

সূত্র আরও জানায়, ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভের কারণে উচ্ছেদ ব্যাহত হলে তারা পুলিশের আশ্রয় নেন। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এসে ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন। তারা ব্যবসায়ীদের বুঝিয়ে শান্ত করে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেন। ব্যবসায়ীরাও পুলিশের কথা শুনে রাস্তা থেকে সরে আসেন। ফলে কোনো ধরণের গোলযোগ সৃষ্টি ছাড়াই বিনাবাধায় রেলওয়ে উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু করেন।

সূত্র মতে, রেলওয়ের থান কাপড় মার্কেটে প্রায় চারশ’র উপরে দোকান রয়েছে। সবগুলো দোকানই উচ্ছেদ করার কথা ছিলো। তবে এই উচ্ছেদে সব দোকান উচ্ছেদ হচ্ছে না বলেই নিশ্চিত হওয়া গেছে। প্রায় দুইশ দোকানের মতো শেষতক টিকে থাকতে পারে বলেই খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে রেলওয়ে জায়গায় গড়ে উঠা থান কাপড় মার্কেট ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মার্কেটটির সভাপতি বিএনপির একসময়কার আলোচিত ব্যক্তি বদিউজ্জামান বদুর উপরে। ব্যবসায়ীদের দাবি, মার্কেট রক্ষা করার কথা বলে প্রতিটি দোকান থেকে ১০ হাজার টাকা করে নিয়েছে সভাপতি বদিউজ্জামান বদু।

থান কাপড় মার্কেটের ব্যাবসীয় রাব্বি জানান, মার্কেট কমিটি রেলওয়েকে টাকা দিয়ে উচ্ছেদ ঠেকাবে। এমন বলে প্রতিটি দোকান থেকে ১০ হাজার করে টাকা নিয়েছে। প্রায় চার থেকে সাড়ে চারশ দোকান। তারা ৪০ থেকে ৪৫ লাখ টাকা নিয়েছে আমাদের কাছ থেকে। এ ঘটনার পুরো নেপথ্যে রয়েছেন বদিউজ্জামান বদু।

এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ করা হবে কিনা জানতে চাইলে ওই ব্যবসায়ী বলেন, সবই তো শেষ, আর অভিযোগ করে কি হবে।

৩১ অক্টোবর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে