NarayanganjToday

শিরোনাম

গিয়াসউদ্দিন সাহেব খালি খাই, খাই আর খাই : শামীম ওসমান


গিয়াসউদ্দিন সাহেব খালি খাই, খাই আর খাই : শামীম ওসমান

সাবেক এমপি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিনের ব্যাপক সমালোচনা করে বর্তমান সাংসদ শামীম ওসমান বলেছেন, “আপনি অন্য এলাকার কোনো কাজ কারেন নাই। তাই বলে নিজের এলাকার উন্নয়ণও করবেন না! আসলে তিনি উন্নয়ণ করবেন কি, তিনি তো শুধু খাই, খাই আর খাই করেই পার করেছেন ৫ বছর।”

শুক্রবার (৫ অক্টোবর) বিকেল ৫টায় মিজমিজি পশ্চিম পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক উঠান বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি ওই কথা বলেন।

গিয়াসউদ্দিনকে উদ্দেশ্য করে শামীম ওসমান আরও বলেন, “এই যে রেবতী মোহন স্কুল। এই স্কুলে সারাজীবন উনিই চেয়ারম্যান। উনিই সব কিছু। অথচ উনি এই স্কুলেরর জন্য কিছুই করলেন না। আমি আইসা এই স্কুলে ৪ থেকে সাড়ে ৪ কোটি টাকার উন্নয়ণ কাজ করে দিলাম।”

এরপর শামীম ওসমান কবরীর সমালোচনা করে বলেন, “এরপর আসলেন তিনি। ছিলেন ৫ বছর। কোনো কাজ করেন নাই। বাদ দেন তার কথা। তাদের মাঝখানে সেনাবাহিনী ছিলো দুই বছর। এই ১২ বছর ফতুল্লা সিদ্ধিরগঞ্জে তারা কোনো কাজ করে নাই। এই ১২ বছরের বোঝা চাপানো হইসে আমার কান্ধে। তাতে কি? আমি কাজ করেছি। এবার এমপি হয়ে কাজ করেছি ৭ হাজার ৪‘শ কোটি টাকা। আরও কাজ আছে। অপেক্ষা করেন।”

নির্বাচন ও ভোট প্রসঙ্গে শামীম ওসমান বলেন, “আপনেরা ভাইবেন না আমি ভোট ভিক্ষা চাইতে আসছি। না। আমি আপনাদের বলবো না, আল্লাহর রাস্তে আমারে একটা ভোট দ্যান। আমি মানুষের কাছে ভোট ভিক্ষা চাই না। আমি ভিক্ষা চাই একজনের কাছে। তিনি হলে আমার আপনার সৃষ্টিকর্তা মহান রাব্বুল আলামিন। আপনি কেবল উসিলা।”

তিনি বলেন, “আল্লাহ যদি চায় তবে আমি আবার এমপি হবো। তিনি যদি না চান তাহলে হবো না। আমি আগে রাজনীতি করেছি নিজের জন্য। এখন আমি রাজনীতি করি ইবাদত মনে করে। আল্লাহকে খুশি করার জন্য আমি রাজনীতি করি। আরে ভাই, কদিন বাঁচমু। কদিনের এই জীবন? তাই বাহাদুরী দেখাইবেন না। মরণের চিন্তা করেন। আমি আমার কর্মীদেরও এমন শিক্ষা দিই। বলি, বাহাদুরি করো না। জোর দেখিও না।”

এছাড়াও শামীম ওসমান বিএনপি’র সমালোচনা করে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, “আপনরা আপনাদের নেত্রীর কথায় একের পর এক মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করলেন। কত কষ্টের মৃত্যু! একবার একটু লাইটার দিয়া হাতে আগুন লাগাইয়া দেখেন, দেখেন আগুনে পুড়ে মৃত্যুর কত যন্ত্রণা। আমি জানি, আগামী ২০ থেকে ২৫ দিনের মতো এমন ঘটনা আবারও ঘটবে। তবে মনে রাইখেন, এদেশের মানুষ আপনাদের এবার আর ছাড় দিবে না।”

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মোতালিব মিয়ার সভাপতিত্বে ওঠান বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াছিন মিয়া, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মো. জুয়েল হোসেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের আহবায়ক মতিউর রহমান মতি, নাসিক ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসান প্রমূখ।

৫ অক্টোবর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে