NarayanganjToday

শিরোনাম

শামীম ওসমান একজন কাপুরুষ : গিয়াসউদ্দিন


শামীম ওসমান একজন কাপুরুষ : গিয়াসউদ্দিন

 “শামীম ওসমানকে তার লোকজন উপাধি দিয়েছিলেন ‘সিংহ পুরুষ’ কিন্তু আমি তো দেখি তিনি একজন ‘কাপুরুষ’। এ কারণেই তিনি প্রশাসনের উপর ভর করে বিরোধী মতের নেতাকর্মীদের একের পর এক মামলা দিয়ে এলাকা ছাড়া করে খালি মাঠে মিথ্যা বলে বেড়াচ্ছেন। গলাবাজি করছেন যা বাস্তবতার সাথে কোনো মিল নেই।”

সম্প্রতি সিদ্ধিরগঞ্জে এক কর্মীসভায় শামীম ওসমান দাবি করেছিলেন, ‘গিয়াসউদ্দিন কোনো কাজই করেনি। অন্য এলাকাতে তো করেন নাই, নিজের এলাকাতেও কোনো কাজ করেন নাই।’ এমন মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে রোববার (৭ অক্টোবর) সাবেক সাংসদ মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন ওই কথা বলেন।

তিনি বলেন, “শামীম ওসমান বলে বেড়ান তিনি ৭ হাজার ৪‘শ কোটি টাকার কাজ করেছেন, এত টাকার উন্নয়ণ তিনি কোথায় করলেন? আমি বিশ^াস করি এর হিসেব তিনি নিজেও দিতে পারবেন না। বলার জন্য তিনি এসব বলে বেড়াচ্ছেন যা গলাবাজি ছাড়া আর কিছু নয়। উনি নিজেকে খুব চালাক ভাবেন আর সাধারণ মানুষকে বোকা মনে করেন। আদতে তিনি নিজেই বোকার স্বর্গে বাস করছেন। এখনকার মানুষ যথেষ্ট সচেতন। তারা ভালো মন্দের নির্ণয় করতে জানেন। তারা বুঝেন শামীম ওসমানের গলাবাজিটা। তাই এই জনগণই সময় হলে শামীম ওসমানের এমন গলাবাজির জবাব দিয়ে দিবেন।”

গিয়াসউদ্দিন বলেন, “ক্ষমতার দম্ভে শামীম ওসমান হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছেন। আর তাই তো সে যেখানে-সেখানে, আবোল-তাবোল বলে বেড়াচ্ছেন। কেউ কি তাকে বলেছেন যে তাদের গায়ের রক্ত নর্দমার পানি? অথচ তিনি হাস্যকরের মতো সেসব প্রশ্ন করেন। সত্যি কথা বলতে, তার কোনো মন্তব্যের জবাব দিতেও আমার রুচি হয় না।”

সাবেক এই সাংসদ আরও বলেন, “ভালো মানুষ কখনোই অন্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা সমালোচনা করেন না। একমাত্র কাপুরুষরাই মিথ্যার বেসাদি দিয়ে নিজেকে শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণে মরিয়া থাকেন। বাংলায় একটি প্রবাদ আছে, ‘খালি কলস বাজে বেশি’ তিনি হলেন সেই খালি কলস। তাই যত্রতত্র একই রকম ভাঙা রেকর্ডের মতো বেজেই চলেছেন।”

গিয়াসউদ্দিন বলেন, “তিনি যদি এতই জনপ্রিয় হন তাহলে প্রতিটি সভা, সমাবেশে একই লোক এনে লোকসমাগম দেখান কেন? সামনে নির্বাচন। এ নির্বাচন যদি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয় তাহলে তখনই তিনি এর সঠিক জবাব পেয়ে যাবেন। আর তখনই প্রমাণ হবে তিনি সিংহ পুরুষ নাকি কাপুরুষ।”

এছাড়াও তিনি বলেন, “আমার ৫ বছরে আমি যতটুকু কাজ করেছি সেই কাজের উপর দাঁড়িয়েই তিনি মিথ্যা বলে বেড়ান। আমার কাজের উপর দাঁড়িয়েই তিনি শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। আমার কাজের উপর দাঁড়িয়েই তিনি সভা সমাবেশ করেন। ফতুল্লা সিদ্ধিরগঞ্জের মানুষ জানেন, তিনি কতটুকু কাজ করেছেন আর আমি কতটুকু করেছি। তিনি যদি বেশি কাজ করে থাকেন তাহলে নিশ্চয় জনগণ তাকে বেশি ভালোবাসবেন? তাহলে এত ভয় কেন? দিক না সুষ্ঠু একটা নির্বাচন আর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করুক, তখনই প্রমাণ হবে জনগণ কাকে বেছে নেয় আর কাকে ছুড়ে ফেলে দেয়।”

প্রসঙ্গত, ৫ অক্টোবর সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পশ্চিম পাড়া উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে কর্মীসভায় শামীম ওসমান সাবেক সাংসদ মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিনের ব্যাপক সমালোচনা করে বলেছিলেন, ‘আপনি অন্য এলাকার কোনো কাজ কারেন নাই। তাই বলে নিজের এলাকার উন্নয়ণও করবেন না! আসলে তিনি উন্নয়ণ করবেন কি, তিনি তো শুধু খাই, খাই আর খাই করেই পার করেছেন ৫ বছর। এই যে রেবতী মোহন স্কুল। এই স্কুলে সারাজীবন উনিই চেয়ারম্যান। উনিই সব কিছু। অথচ উনি এই স্কুলেরর জন্য কিছুই করলেন না। আমি আইসা এই স্কুলে ৪ থেকে সাড়ে ৪ কোটি টাকার উন্নয়ণ কাজ করে দিলাম।’

৭ অক্টোবর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে