NarayanganjToday

শিরোনাম

প্রধানমন্ত্রী’র বক্তব্যে পলাশ শিবিরে উচ্ছ্বাস


প্রধানমন্ত্রী’র বক্তব্যে পলাশ শিবিরে উচ্ছ্বাস

আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন কাউসার আহম্মেদ পলাশ, এমন প্রত্যাশা এখন আরও বেশি বেড়েছে এই নেতারা অনুসারি কর্মী সমর্থকদের মাঝে। বিশেষ করে প্রধান মন্ত্রী’র দেওয়া একটি বক্তব্যের পর থেকে এই শিবিরে এখন উচ্ছ্বাস বিরাজ করছে। তাদের মতে, প্রধানমন্ত্রী বক্তব্যে মনোনয়ন প্রাপ্তীর ক্ষেত্রে পলাশ আরও অনেকদূর এগিয়ে গেলেন।

‘মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে কে বড় নেতা, কে ছোট নেতা দেখবো না, মাঠ জরিপে এবং কৌশলগত কারণে প্রার্থী যাকে দেওয়া হবে, তার পক্ষেই সবাইকে কাজ করতে হবে।’ ১৪ নভেম্বর গণভবনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাতে গেলে তিনি এই বক্তব্য দেন।

পলাশ অনুসারিদের মতে, দিনে দিনে কাউসার আহম্মেদ পলাশ রাজনীতির মাঠে অত্যন্ত পরিপক্ব হয়েছেন। বেড়েছে তার কর্মী সমর্থকসহ শুভাকাঙ্খিদের সংখ্যাও। এমনকি স্থানীয় মানুষের মাঝে নিবিড় একটা সখ্যতাও রয়েছে শ্রমিক রাজনীতি করা এই নেতার। সব দিক দিয়ে বিবেচনা করলে বিতর্কহীন কাউসার আহম্মেদ পলাশ অনেকটাই মন্দের ভালো। এমনটাই মনে করছেন স্থানীয়রা।

এবারের নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী পলাশসহ চারজন। অন্যরা হলেন, বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, কামাল উদ্দিন মৃধা এবং নাহিদা বেগম। তাদের মধ্যে শামীম ওসমান ও পলাশকেই হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে ধরা হচ্ছে।

কারো কারো মতে, এবারও প্রার্থী হবেন শামীম ওসমানই তবে, অনেকের মতে, এটা কেবল ধারণার মধ্যেই রয়েছে। প্রার্থীতার ক্ষেত্রে এবার কিছুটা রদ বদল হতে পারে। আর সেটি হলে পলাশই হচ্ছেন আগামী নির্বাচনের প্রার্থী, এমনটাই মনে করছেন এখানকার রাজনৈতিক বোদ্ধারা।

যদিও তারা বলছেন, নেতা হিসেবে শামীম ওসমান অনেক বেশি পরিপক্ব। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যেই তিনি ইংগীত দিয়ে গেছেন যে, এবার মনোনয়নের ক্ষেত্রে ছোট নেতা বড় নেতা দেখা হবে না। কৌশলগত কারণে অনেককেই প্রার্থী করা হতে পারে। আর সেটি হলে পলাশকে কৌশলগত কারণেই প্রার্থী করা হতে পারে। কেননা, শামীম ওসমানকে ঘিরে ইতোপূর্বে নানা বিতর্ক ছড়িয়েছিলো। আর নির্বাচনী মাঠে সে বিতর্ককে এড়িয়ে যেতে প্রার্থীতার ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসলেও আসতে পারে। তবে, শেষতক কী হয়, সেটি আগামী তিনদিনের মধ্যেই বোঝা যাবে। জানা যাবে কে পাচ্ছেন মনোনয়ন?

১৬ নভেম্বর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে