NarayanganjToday

শিরোনাম

আট তারিখে সব পরিস্কার হয়ে যাবে : গিয়াস উদ্দিন


আট তারিখে সব পরিস্কার হয়ে যাবে : গিয়াস উদ্দিন

 ‘ঋণ যে কেউ থাকতে পারেন। কিন্তু ঋণ থাকলেই যে নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না বা তার প্রার্থীতা ‘অবৈধ’ হবে, সেটি কোনো বিধানে নেই। তবে হ্যাঁ, ঋণ খেলাপি হলে কেউ প্রার্থী হতে পারবেন না। কিন্তু আমি তো ঋণ খেলাপি নই। তারপরও আমার প্রার্থীতা কেন ‘অবৈধ’ ঘোষনা করা হলো?’ আক্ষেপ ভরা কণ্ঠে এমনভাবেই প্রশ্ন রাখলেন সাবেক সাংসদ মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন।

প্রার্থীতা ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশনে আপিল করেছেন সাবেক এই সাংসদ। প্রার্থীতা ফিরে পাবেন কিনা এমন প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে ওই কথাগুলো বলেন তিনি। তার দাবি, “বিধি মোতাবেক কোনো ভাবেই আমার প্রার্থীতা ‘অবৈধ’ নয়।”

গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘ব্যাঙ্ক আমাকে প্রত্যায়নপত্র দিয়েছে। সেখানে স্পষ্ট লেখা রয়েছে, আমার কাছে তারা পাওনা নেই। আমার কিস্তি চলছে, যা চলমান প্রক্রিয়া এবং এটি ঋণখেলাপি নয়।’

তিনি জানান, ‘জিআর টেক্সটাইল মিল লিমিটেড’র অনুকুলে আমি ঋণ নিয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের মিলগুলো রুগ্ন শিল্পে পরিণিত হয়। আর এ কারণে আমার একটিসহ দেশের দেড়শটি মিলকে রুগ্নশিল্প হিসেবে চিহ্নিত করে অর্থমন্ত্রণালয়। পরবর্তীতে আমাদের দেড়শ প্রতিষ্ঠানের ঋণ মওকুফ এই মন্ত্রণালয়।’

গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের ঋণ মওকুফ করে অর্থমন্ত্রণালয় থেকে একটি আদেশ জারি করা হয়। সে আদেশে ব্যাঙ্ক থেকে নেওয়া অর্থগুলো ফেরৎ দিতে দশ বছর মেয়াদী ৮ পার্সেন্ট লাভাংশে ত্রৈমাসিক কিস্তি করে দেয়। আমি এরপর থেকে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ে নিয়মিত কিস্তি পরিশোধ করে আসছি। বরং অগ্রিম কিস্তিও দিই। এখানে আমি সরকারি নিয়ম রীতি অনুযায়ি ঋণ খেলাপী নই।’

তিনি বলেন, ‘আমার প্রার্থীতা ‘অবৈধ’ ঘোষনার নেপথ্যে ভিন্ন কারণ রয়েছে। যা আমি বলবো ষড়যন্ত্র। কোনো একটি পক্ষের জন্য আমি প্রতিবন্ধকতা হয়ে ওঠতে পারি। সেটি ভেবেই ওই পক্ষটির চেষ্টা তদ্বিরে আমার প্রার্থীতা বিধি মোতাবেক ‘বৈধ’ থাকলেও ‘অবৈধ’ ঘোষনা করা হয়েছে।’

সে পক্ষটি কোন পক্ষ? এমন জানতে চাইলে মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন কারো নাম উল্লেখ করেননি। তবে বলেছেন, ‘হতে পারে বাইরের কোনো পক্ষ হতে পারে ঘরের কোনো পক্ষ। সেটি সময় হলে ঠিক জেনে যাবেন। এ নিয়ে কারো নাম বলতে চাচ্ছি না।’

প্রার্থীতা ফিরে পাবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি আশা করছি প্রার্থীতা ফিরে পাবো। এবং আমি নির্বাচনী মাঠে নামবো বলেই আশা করছি। আমার দল বিএনপি’র হাই কমান্ডের সাথে এ নিয়ে নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে আমার। বাকিটা ৮ তারিখেই পরিস্কার হয়ে যাবে।’

৫ ডিসেম্বর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে