NarayanganjToday

শিরোনাম

ভোটকেন্দ্রে না যেতে বিএনপির কর্মীদের প্রতি শামীম ওসমানের আহ্বান


ভোটকেন্দ্রে না যেতে বিএনপির কর্মীদের প্রতি শামীম ওসমানের আহ্বান

নির্বাচনের দিন ভোট কেন্দ্রে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের না যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বর্তমান সাংসদ ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের নৌকার প্রার্থী শামীম ওসমান বলেছেন, দরকার হলে আমাকে  ভোট দেওয়ার দরকার নাই। আমার জন্য বিপদে পড়ার দরকার নাই। দরকার হলে আমাকে ভোটটা না দিয়ে অন্যখানে থাইকা আসেন। যদি দুইটা গুলি হয়, যদি ১৬ জুনের মতো আবারও বোমা ব্লাস্ট হয়, তাহলে আমার একার পক্ষে সেইফ করা সম্ভব নয়। আগে সেইফ পরে ভোট।

শনিবার (২২ ডিসেম্বর) বিকেলে ফতুল্লার হরিহরপাড়া এলাকায় মোহাম্মদ আলী’র ব্যক্তিগত অফিসে বিএনপি’র নেতাকর্মী ও স্থানীয় ব্যক্তিদের সাথে মতবিনময়কালে তিনি ওই কখা বলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপি’র সাবেক এমপি মোহাম্মদ আলী।

শামীম ওসমান বলেন, আমরা সবাই একসাথে মিলেই গড়বো নারায়ণগঞ্জ। কেউ আমার কাছ থেকে অশ্রদ্ধা পাবেন না। আপনারা আমার কাছ থেকে সমান শ্রদ্ধা, অধিকার পাবেন। আমি শুধু দেখবো ভালো কে খারাপ কে। ভালো হলে আপনি আমার মাথার তাজ হয়ে থাকেন, কোনো আপত্তি নাই। আওয়ামী লীগের সবাই যেমন ভালো না বিএনপি’র সবাইও তেমন খারাপ না। আমি ভালো মানুষগুলো নিয়ে কাজ করতে চাই।

তিনি বলেন, আমি এখানে যখন আসছি আমার সাথে আমার বন্ধু ছিলো। আমি নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে তাড়াহুড়ো করে গেছি বিশ্বের শ্রেষ্ঠ কিছু বিজনেসম্যানের প্রতিনিধিদের সাথে বসছি। আমি আমার স্বপ্ন আগের থেকেই কাজ করতে চাই। আমি উনাদের জানালাম আমার নারায়ণগঞ্জে কি কি হচ্ছে। আপনারা জেনে খুশি হবেন, অলরেডি সিঙ্গাপুরের সাথে বাংলাদেশের চুক্তি হয়ে গেছে। নারায়ণগঞ্জ থেকে ফতুল্লা, ফতুল্লা থেকে লিংকরোডম লিংকরোড থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ, সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে নারায়ণগঞ্জ শহর, বিদেশের মতো সিঙ্গাপুরের মতো উপরে দিয়ে ইলেক্ট্রিক ট্রেন যাবে, এটা কিন্তু কল্পনার বাইরে। এটা ঢাকাতেও নাই কিন্তু নারায়ণগঞ্জে হবে।

তিনি বলেন, ডিএনডি প্রজেক্ট সেনাবাহিনীকে দিয়ে করাচ্ছি। আমরা যখন সার্কিট হাউজে বসছিলাম সেনাবাহিনীকে নিয়ে। ডিএনডি প্রজেক্ট কিন্তু একনেকে ছিলো না। আমি একনেকে এনেছি। আমার নেত্রীকে আল্লাহ কবুল করুক। উনার কারণে এই প্রজেক্ট আমি আনতে পেরেছি। কাজ শুরু হয়েছে। এই কাজ কী হচ্ছে এখন আমরা কেউ বুঝতে পারবো না। আমরা এটা বুঝতে পারবো আগামী দুই বছরের মধ্যে যদি আল্লাহর হুকুম হয়। এবং এই প্রজেক্টটা, ৫ হাজার কোটি টাকার বাজেট দাঁড়াবে। এই হাতিরঝিলের থেকে অনেক বেশি উন্নত হবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, ফতুল্লা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফউল্লাহ বাদল, সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী, কুতুবপুর ইউনিয়ণ পরিষদের চেয়ারম্যান ও ফতুল্লা থানা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি মনিরুল আলম সেন্টু, ফতুল্লা থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ফরিদ আহম্মেদ লিটন প্রমূখ।

২২ ডিসেম্বর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে