NarayanganjToday

শিরোনাম

‘অশান্তি সৃষ্টিতে ছাত্রলীগ অতীতে ছিলো না এখনও নেই’


‘অশান্তি সৃষ্টিতে ছাত্রলীগ অতীতে ছিলো না এখনও নেই’

ছাত্র স্বার্থ জড়িত এমন প্রতিটি ইস্যুতেই সক্রিয় থাকে নারায়ণগঞ্জ ছাত্রলীগ, এমন দাবি সংগঠনটির সাবেক ও বর্তমান নেতাদের। তারা বলছেন, ‘কোটা সংস্কার আন্দোলন’ থেকে শুরু করে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনেও তারা সক্রিয় ছিলেন। তবে, বাস্তবতা বলছে ভিন্ন কথা।

সূত্র বলছে, ছাত্র স্বার্থ সংশ্লিষ্ট যে কোনো ইস্যুতে বাম ঘরোয়ানার ছাত্র সংগঠনগুলো মাঠে থাকলেও ক্ষমতাসীন দলের এই ছাত্র সংগঠনটি অবস্থান বরাবরই ছিলো সেসবের বিপরীতে। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশের ছাত্ররা যখন সরব বিপরীতে দেখা গেছে তারা নীরব। এমনকি কোটা সংস্কার আন্দোলনে যেসব ছাত্ররা সম্পৃক্ত তাদের বিরুদ্ধেও ছিলো তারা। সর্বশেষ ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনেও একই চিত্র দেখা গেছে নারায়ণগঞ্জ ছাত্রলীগকে।

তবে, এবার এই আন্দোলনে তারা মাঠে না নামলেও আন্দোলনকারীদে উপর হামলা, আক্রমন কিছু করেনি। যা প্রশংসার দাবি রেখেছিলো। কেননা, দেশের অন্যান্য স্থানে সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা রুদ্রমূর্তি ধারণ করলেও এখানে তা ছিলো অনুপস্থিত।

এদিকে, বিভিন্ন সময় ছাত্র স্বর্থ বিরোধী নানা ইস্যুতেই এই সংগঠনটিকে দেখা যায় না। অতীতে যে কোনো ছাত্র ইস্যু নিয়ে অন্যান্য ছাত্র সংগঠনের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে মাঠে সক্রিয় থাকতো তারা। সে স্বাধীনতা সংগ্রাম হোক কিং স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন- সব কিছুতেই সিক্রয় ভূমিকা রেখেছিলো ছাত্রলীগ। কিন্তু ক্ষমতাসীন হওয়ার পর এই সংগঠনটি নিজেদের স্বকীয়তা হারিয়ে অভিভাবক দলের নির্দেশ ছাড়া পথেই নামে না। এমনকি ছাত্র স্বার্থ সংরক্ষণেও তাদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ। যদিও তারা বলছেন, তারা ছাত্র স্বার্থ সম্পর্কীত সব ইস্যুতেই সরব।

জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেখ সাফায়াত আলম সানি বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রতিটি আন্দোলনই ছাত্রলীগের অর্জন, যেটা ইতিহাস স্বাক্ষী। এছাড়াও কোটা আন্দোলন ও নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে আমাদের অংশগ্রহন ছিলো। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই দাবি মেনে নিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘কথা হলো বাম রাজনীতির সাথে জড়িত ছাত্র সংগঠনগুলো যদি আন্দোলনের নামে অপ-রাজনীতি করার চেষ্টা করে সেখানে তো ছাত্রলীগ কখনই অংশগ্রহন করবে না। আমরা সেই আন্দোলনে বিশ্বাসী যে আন্দোলন ন্যায় প্রতিষ্ঠার কথা বলে।’

এ বিষয় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ বলেন, ‘আমরা ছাত্রদের আন্দোলন সংগ্রামে তাদের সাথে ছিলাম কিনা সেটা নারায়ণগঞ্জবাসী দেখেছে। শুধু তাই নয়, শহরের যানজট নিরসনে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ আমাদের প্রিয় নেতা ছাত্র রাজনীতির আইডল জননেতা একেএম শামীম ওসমানের নেতৃত্বে কি কাজ করেছি সেটা স্থানীয় মিডিয়ার গণমাধ্যম এর ভাইয়েরাও উপস্থিত থেকে দেখেছে। আর আন্দোলনের নামে দেশের শান্তি প্রিয় মানুষের অশান্তি সৃষ্টি করার কোনো কাজে ছাত্রলীগ অতীতেও ছিলো না আর ভবিষ্যতেও থাকবে না।’

মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজে প্রায় ২০ হাজার ছাত্র ছাত্রী আছে তারা সবাই বিগত দিনের ছাত্র আন্দোলন নিরাপদ সড়ক চাই এর সাথে সম্পৃক্ত ছিলো। আমি সেটার নেতৃত্ব দিয়েছি এবং ছাত্র আন্দোলনে তোলারাম কলেজের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। আর যারা ছাত্র আন্দোলনের নামে শান্তিকে বিনষ্ট করতে চায় আমরা কেন তাদের পক্ষে যাবো। কারন সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা আগামীর ভবিষ্যৎ। তারা এখানে লেখা পড়া করার জন্য এসেছে। তবে হ্যাঁ ন্যায়ের পক্ষে সব সময় ছাত্রলীগ ছিলো ভবিষ্যতেও থাকবে।’

১৮ মার্চ, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে