NarayanganjToday

শিরোনাম

এসপি অফিসে ছুটে গেলেন শামীম ওসমান!


এসপি অফিসে ছুটে গেলেন শামীম ওসমান!

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে হঠাৎ করেই ছুটে গিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমান! মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে তিনি এসপি অফিসে গিয়েছিলেন।

সূত্র বলছে, এদিন বিকেল ৫ টা ৫ মিনিটে নিজের গাড়িতে করে এসপি অফিসে এসে হাজির হন সাংসদ শামীম ওসমান। পরে তিনি এসপি হারুন অর রশীদের কক্ষে প্রবেশ করেন। এবং এখান থেকে ৫০ মিনিট পর তিনি বেরিয়ে যান।

তবে, কি কারণে তিনি গিয়েছিলেন সে বিষয়ে তেমন কিছু জানা না গেলেও এ নিয়ে ব্যাপক কৌতুহলের সৃষ্টি করেছে মানুষের মাঝে।

এদিকে এসপি অফিসে সাংসদ শামীম ওসমানের ছুটে যাওয়া নিয়ে অনেকেই নানা ধরণের প্রশ্ন তুলেছেন। কেউ কেউ বলছেন, একজন সাংসদ এসপির থেকেও প্রটোকল মতে অনেক উপরে। ফলে এমপি এসপিকে ডেকে পাঠাতে পারেন। কিন্তু তিনি সেটি না করে স্বশরীরেই এসপি অফিসে গিয়ে উপস্থিত হন! এতে করে তার ক্ষমতা যে পূর্বের থেকে হ্রাস পেয়েছে সেটিই তিনি স্বাক্ষর রেখেছেন।

কথিত রয়েছে, নারায়ণগঞ্জে যোগদানের পর থেকেই এসপি হারুন অর রশীদের সাথে ভালো সম্পর্ক ছিলো না সাংসদ শামীম ওসমানের। এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি অভিযানে সাংসদ অনুসারী বেশ কয়েকজন গ্রেফতার হওয়ার পরই তাদের সম্পর্ক যে ভালো নয় তা স্পষ্ট হয়ে উঠে সর্বমহলে। এমনকি তার অনুসারি কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবুকে গ্রেফতারের পর এসপি অফিসে ছুটে গিয়েছিলেন শামীম ওসমান। কথিত রয়েছে, সেদিন তিনি বাবুকে ছাড়ানোর জন্য তদবির করেছিলেন।

এর আগেও শামীম ওসমান অনুসারি শাহ আলম গাজী টেনু, সাবেক কাউন্সিলর কামরুল হাসান মুন্না, মীর হোসেন মীরু এবং সর্বশেষ তার ছেলের সম্বন্ধি মিনহাজ উদ্দিন ভিকিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এছাড়াও সম্প্রতি তার ভাতিজা আজমেরী ওসমানের ফ্ল্যাটেও অভিযান চালিয়েছিলো পুলিশ। যা ছিলো টক অব দ্য নারায়ণগঞ্জ।

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে