NarayanganjToday

শিরোনাম

ফতুল্লায় বীথির ফ্ল্যাটে কী হতো, কারা আসতো গভীর রাতে?


ফতুল্লায় বীথির ফ্ল্যাটে কী হতো, কারা আসতো গভীর রাতে?

আমেরিকা প্রবাসী’র স্ত্রী বীথি’র ফ্ল্যাটে অসংখ্য রথি-মহারথিদের আনাগোনা। রয়েছে নিয়মিত যাতায়াতও। প্রশাসনের লোক থেকে শুরু করে রাজনীতিক ও ব্যবসায়ীদের অবাধে যাতায়ত এই বিথীর ফ্ল্যাটে। বসতো মদের আড্ডা। ধারণা করা হচ্ছে এর বাইরে আরও অন্যান্য অসামাজিক কর্মকাণ্ডও এখানে হতো।

তবে, এতদিন এসব নির্বিঘেœ হয়ে আসলে এতে ভাগড়া দিয়েছে ফতুল্লা মডেল থানার বেরসিক পুলিশ। আর এতেই বেরিয়ে আসলো বীথির আফজানগরের ফ্ল্যাটের থলের বিড়াল। মধ্যরাতে সেখানে হানা দিয়ে মদ্যপ অবস্থায় ক্ষমতাসীন দলের দুই যুবককে আটক করা হয়। তবে, অদৃশ্য ইশারায় ছাড় দেয়া হয়েছে প্রবাসীর স্ত্রী বীথিকে।

বীথি আমেরিকা প্রবাসী জিয়াউল হাবিবের স্ত্রী এবং ৬২/১ দুই নং বাবুরাইল এলাকার মৃত আনোয়ার হোসেনের মেয়ে। বীথির স্বামী জিয়াউল হাসান গত ১৬ বছর ধরে আমেরিকাতেই থাকেন। আর তিনি তার দুই মেয়েকে নিয়ে ভাড়ায় বসবাস করেন ফতুল্লার আফাজ নগর আবাসিক এলাকার এক নং গলির কুদ্দুস মিয়ার বাড়ির ৫ম তলার ফ্ল্যাটে।

বাড়ির মালিক কুদ্দুস মিয়া জানান, “এই ফ্ল্যাটটিতে গত পৌনে ৩ বছর ধরে ভাড়া নিয়েছেন বীথি। তিনি এখানে তার দুই মেয়েসহ থাকেন। এর বেশি কিছু আমার জানা নেই।”

এদিকে এই বড়ির ৫ম তলায় বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে অভিযান চালায় ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। তবে, পুলিশ পরিচয় জানার পরও ভেতর থেকে দরজা খুলতে রাজি হয়ননি বীথি। উপরন্ত পুলিশকেই দিচ্ছিলেন নানা ধরণের হুমকি ধামকি। আর পুলিশের বীথির তুই তোকারি সম্বোধন। একই সাথে তিনি যে ফ্ল্যাটের ভেতর থেকে বিভিন্ন জনকে ফোন দিচ্ছিলেন, তা বোঝা যাচ্ছিলো।

সূত্র মতে, প্রায় দেড় ঘণ্টা পর ভেতর থেকে দরজা খুলে দেন বীথি। ততক্ষণে বাড়ির মালিক থেকে শুরু করে আশপাশের ফ্ল্যাটের অন্যান্য ভাড়াটিয়ারাও বীথির ফ্ল্যাটের সামনে এসে জড়ো হন। আর পুলিশ বীথির অনুমতিক্রমে ভেতরে ঢুকেই পেয়ে যান দুই যুবককে মদের বোতলসহ। এত রাতে মদ্যপ দুই যুবককে এখানে দেখে অনেকেরই চোখ চরকগাছ। এসময় পাওয়া যায় সদ্য মদপান করা বিদেশী মদের বোতলসহ বেশ কয়েকটি খালি মদের বোতল। ধারণা করা হয়, এখানে নিয়মিতই বসতো মদসহ অন্যান্য অসামাজিক কার্যকলাপের আসর।

এদিকে আটক দুই যুবকের একজন নিজেকে ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে দাবি করে জানান তার নাম ফাহিম। তিনি নগরীর দেওভোগ এলাকার জহিরুল হক সেলিম রেজার ছেলে। অপর যুবক আফাজনগরের কাছেই আয়রন মার্কেটের লৌহ ব্যবসায়ী রনি। তার বাড়িও দেওভোগ এলাকায়। পিতার নাম ফজলুল হক। তাদের মধ্যে ফাহিম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাতের সক্রিয়কর্মী। এবং ডিঅইটি এলাকার ফুটপাত থেকে চাঁদা উত্তোলনকারী বলে জানা গেছে।

এছাড়া আটক দুই যুবক ও বীথি জানান তারা সম্পর্কে ভাই-বোন। তবে, খোঁজ খবর নিয়ে পুলিশ নিশ্চিত হন, তাদের সম্পর্ক ভাই-বোনের নয়। তারা এখানে এসেছেনই মদপানের জন্য। অন্তরালে আরও অনেক কারণ থাকতে পারে। তবে, পুলিশ সেদিক আর এগুননি রহস্যজনক কোনো কারণে। ধারণা করা হচ্ছে, বীথির এখানে শুধু এরাই নয়, নিয়মিত অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তিরাও আসা যাওয়া করেন। হয়তো তাদের কারো ইশারায় এসব কিছু আর ঘাটায়নি পুলিশ।

এদিকে স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, আফাজ নগরে প্রায় তিন বছর যাবত বসবাস করছেন বীথি। বেশ পরিপাটি এবং মর্ডান তার চলাফেরা। অনেকটা ডেমকেয়ার মুডেই তিনি এখানে থাকেন। তবে, তার ফ্ল্যাটে প্রায় সময় অসংখ্য লোকের যাতায়াত ছিলো। তারা প্রায় সকলেই আসতেন বিলাস বহুল গাড়ি করে। কেউ কেউ গভীর রাতে আসতেন। কেউ আবার গভীর রাতে বেরিয়ে যেতেন। অনেক সময়, সিঁড়ি ভেঙে নামার সময় অনেক যুবককে মাতলামি করতেও দেখেছেন অনেকে।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (আইসিপি) গোলাম মোস্তফা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে আফাজ নগর আবাসিক এলাকায় কুদ্দুস মিয়ার ৫ম তলার ফ্ল্যাটে মধ্যরাতে অভিযান চালানো হয়। এসময় দুইজনকে মদ-পান করা অবস্থায় আটক করা হয়েছে। জানা যায় ওই ফ্ল্যাটে বীথি নামে এক নারী বসবাস করেন। তার দুইটি মেয়ে আছে, স্বামী জিয়াউল হাবিব আমেরিকায় বসবাস করেন। এছাড়া এই ফ্ল্যাট থেকে আরও ১৪টি বিদেশী মদের বোতল খালি অবস্থায় পাওয়া যায়।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার আরেক পরিদর্শক (অপারেশন) মজিবুর রহমান জানান, স্থানীয়রা পুলিশকে জানিয়েছে বীথির ফ্ল্যাটে প্রতিদিন প্রাইভেটকারে একাধিক ব্যবসায়ীরা এসে সকাল থেকে ভোর রাত পর্যন্ত মদের আড্ডা জমাতো। একই সঙ্গে অসামাজিক কার্যকলাপও চালাতো। এতে মাতাল হয়ে অনেকেই ফ্ল্যাটের বাহিরে বের হয়ে মাতলামি করতো। এনিয়ে ওই এলাকায় বসবাসকারী লোকজন অতিষ্ট হয়ে পুলিশের সহযোগিতা চেয়েছেন। এরপর এলাকাবাসীর অভিযোগ তদন্ত করে অভিযান চালানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ওই ফ্ল্যাটে দুই ব্যক্তিকে মদ-পানের সময় আটক করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ফাহিম নামে একজন নিজেকে ছাত্রলীগ নেতা পরিচয় দিয়েছেন। তিনি ওই ফ্ল্যাটে একটি প্রিমিও প্রাইভেটকার নিয়ে এসেছেন। উদ্ধার করা মদের খালি বোতলের সঙ্গে সেই প্রাইভেটকারও জব্দ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন :
ফতুল্লায় মধ্যরাতে প্রবাসীর স্ত্রী’র ফ্ল্যাটে ছাত্রলীগ নেতা, আটক ২

১২ অক্টোবর, ২০১৮/এসপি/এনটি

উপরে