NarayanganjToday

শিরোনাম

আইভী’র স্বপ্ন এসপি’র মাধ্যমে বাস্তবায়িত, ফাঁকা ফুটপাতে খুশি নগরবাসী


আইভী’র স্বপ্ন এসপি’র মাধ্যমে বাস্তবায়িত, ফাঁকা ফুটপাতে খুশি নগরবাসী

হকারশূন্য নগরীর গুরুত্বপূর্ণ বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত। নির্বিঘেœ চলাচল করছে নগরবাসী। এমন প্রত্যাশা বহু আগেই করেছিলেন নগরীর সর্বস্তরের মানুষ। কিন্তু একটি পক্ষের বিরোধীতার কারণে রক্তপাতের ঘটনা ঘটলেও সে আর হয়ে ওঠেনি। তবে, বিনা রক্তপাতে হাজারো মানুষের বহুল প্রত্যাশীত সে কাজটি করে দিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ।

নারায়ণগঞ্জ জেলায় যোগদানের পরপরই পুলিশ সুপার নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে হকারমুক্ত ফুটপাত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছিলেন। জানিয়েছিলেন শহরের অবৈধ গাড়ি পার্কিং ও স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করবেন। আর সেটি তিনি করবেন, নির্বাচনের পর। শেষতক কথা রেখেছেন পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ।

এদিকে, সম্প্রতি চাষাড়া শহীদ মিনারে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ। তিনি সেখানেও জানিয়েছিলেন ফুটপাত দখলমুক্ত রাখার কথা। সেদিন তিনি কিছু কিছু ফুটপাত দখলমুক্ত করেনও। এমনকি চাষাড়া এলাকার সিএনজি স্ট্যান্ডও উচ্ছেদ করেন। সেই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার, শনিবারও শহরের ফুটপাতে সকাল থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত কোনো হকার বসতে দেখা যায়নি। পুরো ফুটপাতই ছিলো শূন্য।

দিনভর সাধারণ মানুষের মাঝে এ নিয়ে ছিলো ব্যাপক আলোচনা। এ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নগরবাসী। হকারশূন্য ফুটপাত ধরে হাঁটার স্বপ্নই যেন তারা দেখেন। তাদের এই স্বপ্ন বাস্তবায়নের দায়িত্ব নিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। এ নিয়ে হয়েছিলো লঙ্কাকান্ডও। এমনকি হকার উচ্ছেদ নিয়ে সৃষ্ট ঘটনায় রক্তপাতও ঘটেছিলো। আহত হয়েছিলেন খোদ সিটি মেয়রও। এরপর কয়েকদিন হকারশূন্য ফুটপাত থাকলেও ফের ফুটপাত দখলে নিয়ে নেয় হকাররা।

তবে, এবার নগরবাসীকে নির্বিঘেœ চলাচলের জন্য হকারমুক্ত ফুটপাত রাখার ঘোষণা দিয়ে মাঠে নামেন পুলিশ সুপার। তিনি সেটি করেও যাচ্ছেন। তবে, সেটি কতোদিন থাকবে সেটিও এখন প্রশ্ন। যদিও সাধারণ মানুষ বলছেন, মেয়র যখন হকার উচ্ছেদের জন্য মাঠে নেমেছিলেন তখন যদি স্থানীয় অন্য জনপ্রতিনিধিরাও তাকে সহযোগিতা করতেন তবে, হকারমুক্ত ফুটপাত থাকতো। ঠিক একই ভাবে এসপি যে উদ্যোগ নিয়ে মাঠে নেমেছে সেটি স্থায়ী করতে হলে জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতার বিকল্প নেই।

তবে, হকারশূন্য ফুটপাতে হাটতে পেরে যারপরনাই আনন্দিত নগরবাসী। তাদের দাবি, এমন ফুটপাত থাকুক মানুষের নির্বিঘœ চলাচলের জন্য। জনপ্রতিনিধিরাও যেন এসপির এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে যুক্ত হন সে প্রত্যাশাও তারা করেন। তারা মনে করেন, হকারমুক্ত ফুটপাত দলমত নির্বিশেষে সকলেই চায়। সুতরাং এই উদ্যোগ নিঃসন্দেহে মহতী। তাই এখানে রাজনৈতিক রঙ না ছিটিয়ে এটিকে সফল করার জন্য সবাইকে এক কাতারে এসে দাঁড়ানো উচিৎ।

১৩ জানুয়ারি, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে