NarayanganjToday

শিরোনাম

ছাত্র সংসদের গুরুত্ব অপরিসীম, তোলারামে নির্বাচন নেই ২৩ বছর


ছাত্র সংসদের গুরুত্ব অপরিসীম, তোলারামে নির্বাচন নেই ২৩ বছর

দীর্ঘ কয়েক বছর ধরেই হচ্ছে না নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহি সরকারী তোলারাম কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচন। ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত নেতাদের দাবি নির্বাচন নেই ২৩ বছর যাবৎ। আর নির্বাচন হওয়া না হওয়ার বিষয়টি কলেজ কর্তৃপক্ষের, দাবি করেন বর্তমান স্বঘোষিত ছাত্র সংসদের দায়িত্বে থাকা নেতৃবৃন্দ।

ছাত্র-ছাত্রীদের অধিকার আদায়ের জন্য দেশের প্রতিটি কলেজ ও বিশ্ব বিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের মাধ্যমেই তাদের দাবির কথা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরা হয়। ফলে প্রতিটি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদের প্রয়োজনীয়তা অপরসীম।

এদিকে তোলারাম কলেজের ছাত্র সংসের নির্বচন এবং নির্বাচিত ছাত্র সংসদ অত্যাবশক, মনে করেন ক্ষমতাসীন ও ক্ষমতার বাইরে থাকা ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত বর্তমান ও সাবেক নেতারা। তবে, এখানে নির্বাচনের মূল চালিকাশক্তি তথা এখতিয়ার হোক বা ইচ্ছে যাই বলা হোক না কেন সেটির পুরো এখতিয়ার কলেজ কর্তৃপক্ষের। বর্তমানে এই এখতিয়ার কলেজটির প্রফেসরের। অর্থাৎ তিনি চাইলে ছাত্র সংসদের নির্বাচন হবে না চাইলে এখন হবে না।

সরকারি তোলারাম কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর বেলা রানী সিংহ বলেন, আসলে এই কলেজের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে অনেক ব্যস্ততার মধ্যে আছি। আমি চেষ্টা করছি যাতে করে কলেজের নিয়ম-শৃঙ্খলা ধরে রাখা যায়। আর এর অনেকটা উন্নতি হয়তো আপনারা লক্ষ্য করেছেন। আর ছাত্র সংসদের নির্বাচনের বিষয় নিয়ে আমি এখনও ভাবিনি। অন্যান্য কলেজ যদি শুরু করে আমিও করবো।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়াত আলম সানি বলেন, ছাত্র-ছাত্রীদের স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের আরেকটি মাধ্যম এই ছাত্র সংসদ। আর এই সংসদের দায়িত্ব থাকেন ছাত্র-ছাত্রীদের ভোটে নির্বাচিত তাদের পছন্দের ছাত্ররাই। আর নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহি সরকারি তোলারাম কলেজের ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম নয়। কিন্তু এ বিষয় সাধারণ ছাত্র ছাত্রীদেরও সচেতন হওয়া উচিৎ যে কাউকে ভোট দিয়েই সংসদে বসানো ঠিক না।

তিনি বলেন, আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচনে কি দেখলাম নুরুর মত ছেলেকে ভিপি হিসেবে ছাত্র ছাত্রীরা নির্বাচিত করেছে। একটি অরাজনৈতিক সংগঠন থেকে আসা লোক কখনই রাজনৈতিকভাবে উপকারে আসে না। আর নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের সংসদ নির্বাচনের বিষয় যদি বলেন, তাহলে বলবো এটা সম্পুর্ন কলেজ কর্তৃপক্ষের বিষয় এখানে আমাদের কারও কিছু করার নেই। তারা যখন মনে করবেন নির্বাচন দেয়া প্রয়োজন, তখনই দিবেন।

মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ বলেন, সরকারি তোলারাম কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সকল সমস্যা আমাদের সংসদের মাধ্যমে সমাধান করার চেষ্টা করছি। ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের সমস্যা নিয়ে আমাদের কাছে আসলে প্রথম সংসদের পক্ষ থেকে চেষ্টা করি। তা নাহলে কলেজ কতৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে সমাধানের চেষ্টা করি। আর সরকারি তোলারাম কলেজ বিশ্ব বিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দায়িত্ব কলেজ কতৃর্পক্ষের হাতে। তারা যখন মনে করবেন সংসদ নির্বাচন প্রয়োজন দিবেন, এখানে আমাদের কোনো বিষয় নেই।

এ বিষয় নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজ বিশ্ব বিদ্যালয়ের সাবেক ভিপি মাসুকুল ইসলাম রাজীব বলেন, সাধারণ ছাত্র ছাত্রীদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে অবশ্যই ছাত্র সংসদ নির্বাচন প্রয়োজন। কারণ, তাদের চাওয়া পাওয়ার বিষয়গুলোকে কলেজ কর্তৃপক্ষের নজরে আনতে মাধ্যম হিসেবে এই সংসদই বড় ভূমিকা পালন করে। তবে অবশ্যই ছাত্র সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা বর্তমান যে সকল নির্বাচন দেখছি যেখানে ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োজন হয় না। এই ধরনের নির্বাচন হওয়ার চেয়ে না হওয়াই ভাল। ছাত্র সংসদ অবশ্যই যোগ্য নেতৃত্বের হাতে যেতে হবে। ২০০৩ সালে সরকারি তোলারাম কলেজে ছাত্র সংসদের নির্বাচনে রাজীব-শাহ আলম পরিষদ নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছি। এরপর আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর থেকে এখনও নির্বাচন হয়নি।

মহানগর ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক আবুল কাউছার আশা বলেন, ছাত্র সংসদের মাধ্যমেই ছাত্রদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়। শুধু তাই নয় আজকে যারা বাংলাদেশের রাজনীতিতে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে তাদের অধিকাংশ নেতাই ছাত্র সংসদের সাথে যুক্ত ছিলো। আজকে যারা ছাত্র সংসদের মাধ্যমে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করছে। একদিন তারাই দেশ ও মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য আন্দোলন করবে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে বলা চলে ছাত্র সংসদের অভিজ্ঞতা থেকেই এক সময় ভালো একজন রাজনীতিবীদ হতে পারে।

১৪ মার্চ, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে