NarayanganjToday

শিরোনাম

ডিস বাবু-জয়নাল গ্রেফতার হলেও নাজিমের টিকি ছুঁতে পারেনি পুলিশ!


ডিস বাবু-জয়নাল গ্রেফতার হলেও নাজিমের টিকি ছুঁতে পারেনি পুলিশ!

সাম্প্রতিক সময়ে কাউন্সিলর বাবু, আল জয়নালদের মতো ব্যাপক প্রভাবশালীরা গ্রেফতার হলেও ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ব্যর্থতায় পাড় পেয়ে গেলেন সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান নাজিমউদ্দিন! যা পুলিশের ব্যর্থতা হিসেবেই দেখছেন অনেকেই।

ক্ষমতাসিন দলের ওই নেতার বিরুদ্ধে দুই মামলা হলেও তাকে গ্রেফতারে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। আর এ সুযোগে উচ্চ আদালত থেকে নাজিম উদ্দিনের মতো ভয়ঙ্কর ব্যক্তিটি জামিন নিয়ে ফিরেও এসেছেন এলাকাতে। এ নিয়ে চলছে নানা কানাঘুষা।

শুধু তাই নয়, যে থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা হলো সেই থানাতেই তিনি জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরীও করেছেন। যা ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। তবে, এখানে নিজেদের কোনো ব্যর্থতা নেই বলেই দাবি করেছেন ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মো. আসলাম হোসেন।

তার দাবি, আমি এখানে যোগদানের পর থেকে বিপুল সংখ্যক মাদক মামলা দিয়েছি। চিহ্নিত সন্ত্রাসী চুন্নুকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছি। আরও একটি অস্ত্র উদ্ধার করেছি। মোহন নামে সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছি। আমার এলাকাতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি যথেষ্ট ভালো রয়েছে।

আসলাম হোসেন বলেন, নাজিমউদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিলো। সেটি এখনও তদন্ত চলছে। মামলার পরপরই তাকে গ্রেফতারে অভিযান চালানো হয়। তখন তিনি পলাতক ছিলেন। এরমধ্যে জামিন নিয়েছেন। এতে আমাদের ব্যর্থতা হতে পারে না। আমরা অপরাধীদের অপরাধী হিসেবেই দেখবো এবং আইনেইর ধারা অনুযায়ি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

প্রসঙ্গত, ১৮ এপ্রিল সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা কৃষক লীগের সভাপতি নাজিম উদ্দিন ও তার বাহিনী কয়েকটি ফ্ল্যাটে হামলা চালিয়ে মারধর করে। এতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শিক্ষা ক্যাডার আব্দুস সালামসহ ৫ জন আহত হন। এ ঘটনায় শুক্রবার প্রায় কয়েকশত ফ্ল্যাট মালিক নাজিম উদ্দিনকে সন্ত্রাসী আখ্যা দিয়ে তার বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে মানববন্ধন করে।

এছাড়াও এ ঘটনায় ভুক্তভোগি আবু সাঈদ পাটোয়ারী ও আশরাফ সিদ্দিকী বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা করেন ফতুল্লা মডেল থানায়। মামলায় ভাইস চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন ও তার বাহিনী ৭০ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।

এসব ঘটনায় রূপায়ন টাউনের প্রায় ৮৭৪ জন ফ্ল্যাট মালিকদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছিলো। এমন অবস্থার মধ্য দিয়ে ২০ এপ্রিল সাংসদ শামীম ওসমান রূপায়ন টাউনে বিক্ষুব্ধ ফ্ল্যাট মালিকদের সাথে কথা বলতে স্ব শরীরে উপস্থিত হন।

১৪ মে, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে