NarayanganjToday

শিরোনাম

হকার ইস্যুতে ফের জলঘোলার আশঙ্কা : প্রকাশ্যে হাফিজ, নেপথ্যে কে?


হকার ইস্যুতে ফের জলঘোলার আশঙ্কা : প্রকাশ্যে হাফিজ, নেপথ্যে কে?

হকার ইস্যু নিয়ে গেল বছর ঘটে গিয়েছিলো লঙ্কাকাণ্ড। সংঘর্ষের ঘটনায় মেয়র আইভীর উপর হামলাও হয়। ওই ঘটনা পুরো দেশজুড়েই ছিলো বেশ আলোচিত। এবারও হকার ইস্যু নিয়ে গত বছরের মতো সংঘর্ষের ইংগিত পাওয়া যাচ্ছে হকারদের জড়ো হওয়ার মধ্য থেকে।

সূত্র মতে, নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কের উভয় পাশ থেকে হকার উচ্ছেদ করেছিলো পুলিশ প্রশাসন। উচ্ছেদের মোটামুটি শান্ত ছিলো হকাররা। দল পাকাতে বা আন্দোলন করতে পারেনি। কিন্তু গেল কিছুদিন ধরেই একশ্রেণির কথিত হকার নেতারা সাধারণ হকারদের একত্রিত করার উদ্যোগ নেয়। তবে, এতদিন সভা, সমাবেশ, হুঁশিয়ামূলক কোনো বক্তব্য শোনা না গেলেও এবার তা শোনা যাচ্ছে।

দেখা গেছে, গেল বছরের মতো তারা এবারও পাশে পাচ্ছেন রাজনৈতিক নেতাদের। ইতোমধ্যে গুটি দু একজন রাজনীতিক যুক্ত হয়েছেন হকারদের সাথে। গেল বছর হকার উচ্ছেদের পর যারাই হকারদের পাশে থেকে, উস্কানি দিয়ে জলঘোলা করে সংঘর্ষের দিকে নিয়ে গিয়েছিলো, এবারও তাদের কেউ কেউ প্রকাশ্যেই হকারদের সমাবেশে উপস্থিত হয়ে বক্তব্যও দিয়েছেন এবং পুনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদ করা যাবে না, বলেও সাংবিধানিক আইন তুলে ধরে বক্তব্য রেখেছেন।

জানা গেছে, গেল বছর হকার উচ্ছেদের পর হকার সংগ্রাম পরিষদ নামের একটি ব্যানারে জড়ো হতে শুরু করে হকাররা। তখন শুরুর দিকে হকারদের মাঝে এসে উপস্থিত হন নারায়ণগঞ্জ সিপিবি নেতা হাফিজুল ইসলাম। তখন তিনিই হকার আন্দোলনটাকে চাঙ্গা করে তুলেন সামনের সারিতে থেকে। পরে অবশ্য ওই হকার আন্দোলনে এসে যুক্ত হন সাংসদ শামীম ওসমান, শাহ নিজামসহ আরও অনেকেই।

সেসময় হকার ইস্যু নিয়ে সাংসদের পাশে একই মঞ্চে ছিলেন হাফিজুলও। দুজন দুই মেরুর হলেও তারা অভিন্ন বক্তব্য রেখেছিলেন হকারদের পক্ষে এবং হকারদের পাশে থাকার কথাও জানিয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত হকারদের পাশে থাকবেন বলেও তারা সেসময় ঘোষণা দিয়েছিলেন। ফলশ্রুতিতে গত ১৬ জানুয়ারি হকার ইস্যু নিয়ে নগরীতে ঘটে যায় ব্যাপক সংঘর্ষ। এতে মেয়র আইভীও আহত হয়েছিলো।

এদিকে এবার হকার উচ্ছেদের প্রায় দেড় মাস পেরিয়ে গেলেও হকাররা সেভাবে জড়ো হতে পারেনি। এ নিয়ে সাংসদ শামীম ওসমান বা তার অনুসারিদেরকেও কোনো রকম মন্তব্য বা হকারদের পক্ষে এসে দাঁড়াতে কিংবা বক্তব্য দিতেও দেখা যায়নি। ফলে হকারারা আন্দোলনে নামবে তো দূরের কথা, সেভাবে তারা জড়োও হতে পারেনি। তবে এবার তারা পূর্ণ শক্তি নিয়েই মাঠে নেমেছে। পাশে এসে দাঁড়িয়েছে গত বছর হকার আন্দোলনের শুরুতে যিনি অগ্রভাগে ছিলেন সেই সিপিবি নেতা হাফিজুল ইসলাম।

এদিকে নগরবাসী বলছেন, হাফিজুল ইসলাম গতবারের মতো এবারও শুরুতেই হকারদের পাশে এসে বক্তব্য রেখেছেন। তাদের সাথে গিয়ে ডিসি অফিসেও গিয়েছেন। স্মারকলিপি দিয়েছেন। ফলে গতবারের মতো কিছু একটা এবারও হতে পারে বা তেমন কিছু ঘটানোর জন্য নেপথ্যে কোনো মহল হাফিজুলকে মাঠে নামিয়েছে হকারদের পক্ষে।

১১ জুলাই, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে