NarayanganjToday

শিরোনাম

জাকির খান থেকে আজমেরী ওসমান : বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী নাজির


জাকির খান থেকে আজমেরী ওসমান : বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী নাজির

তার নাম নাজির আহম্মেদ। তিনি জাতীয় পার্টির নেতা আবুল জাহেরের শ্যালক। আবার পলাতক শীর্ষ সন্ত্রাসী জাকির খানে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠজন। এছাড়াও সে আলোচিত মেজর পারভেজ হত্যা মামলার আসামী।

কখনো কখনো আবার প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমান পুত্র আজমেরী ওসমানের সাথেও দারুণ সখ্যতায় দেখা যায় বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী এই নাজির আহম্মেদকে। সম্প্রতি অনুমোদন পাওয়া নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতির পদও পেয়েছেন তিনি। তাই প্রশ্ন উঠেছে, একই অঙ্গে এত রূপ নিয়ে কীভাবে সে স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সভাপতি হলেন?

সূত্র মতে, নাজির আহম্মেদকে সকলেই চেনেন পলাতক সন্ত্রাসী জাকির খানের ক্যাডার হিসেবে। তার নিজেরও রয়েছে সুসজ্জিত একটি বাহিনী। এই বাহিনী নাগবাড়ি, বাবুরাইল, দেওভোগসহ বেশ কয়েকটি এলাকার মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রক। আর এই মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ নিয়েই বছর ছয় এক আগে প্রতিপক্ষ নাজির বাহিনীর হাতে নৃশংস ভাবে খুন হয়েছিলো মেজর পারভেজ।

পারভেজ হত্যায় ২০১৩ সালের ৩১ জুলাই নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মনোয়ারা বেগমের আদালতে সিরাজউদ্দৌলা ওরফে কাইল্লা বাবু ও অপর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট চাঁদনী রূপমের আদালতে অপর আসামি মশু পৃথকভাবে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেন।

জবানবন্দিতে তারা জানিয়েছিলো, পারভেজ হত্যার পেছনে ছিল মাদক স্পট নিয়ে বিরোধ। স্থানীয় সন্ত্রাসী গ্রুপের সঙ্গে ওই বিরোধের এক পর্যায়ে পারভেজকে অবরুদ্ধ করে ধারালো রাম দা দিয়ে ঘাড়ে কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। ওই হত্যায় ৭-৮ জন থাকলেও মূলত সাবেক ছাত্রদল ক্যাডার জাকির খানের অনুগামী নাজির বাহিনীর প্রধান নাজির ছিল অগ্রভাগে। বর্তমানে ওই অঞ্চলের মাদকের ব্যবসার নিয়ন্ত্রক হিসেবে নাজির আহম্মেদকেই জানে অনেকে।

এদিকে বিএনপি ক্ষমতাচ্যুত হলেও জাপা নেতা আবুল জাহের দুলাভাই হওয়ার সুবাধে কখনো কোনো বেগ পেতে হয়নি নাজির আহম্মেদের। নিরাপদেই থেকেছে এতটা বছর। আবার মাদকের ব্যবসাও চালিয়েছে আড়ালে আবডালে। পাশাপাশি শ্যামের ভূমিকায় থাকা পলাতক জাকির খানের সাথেও নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে গেছে সে। একই সঙ্গে কূল রাখার চিন্তা থেকে সখ্যতা রেখেছেন আজমেরী ওসমানের সাথেও।

শেষতক এই বহুমুখী প্রতিভার অধিকার নাজির আহম্মেদ বাগিয়ে নিয়েছেন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসভাপতির পদটিও। সম্প্রতি তাকে দেখা যায় সংগঠনটির সভাপতি সাবেক এমপি আবুল কালামের পুত্র আবুল কাউসার আশার সাথে একটি সভাতেও। আর আজমেরী ওসমানের সাথে নাজির আহম্মেদের ঘনিষ্ঠভাবে তোলা ছবিটি এখন ঘুরছে নানা জনের ফেসবুকে। সাথে সাথে প্রশ্ন উঠেছে, কত টাকার বিনিময়ে তার মতো একজন বিতর্কিত মাদক কারবারি হত্যা মামলার আসামীকে স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসভাপতি বানানো হলো?

এদিকে নাজির আহম্মেদ দাবি করেছেন, তার সাথে আজমেরী ওসমানের কোনো সখ্যতা নেই। নীট কর্নসানের মালিক জাহাঙ্গীরের ভাই মারা গেছেন, সেখানে গেলে আজমেরী ওসমানের সাথে দেখা হয় তখন এই ছবিটা তোলা হয়েছে।

১৬ আগস্ট, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে