NarayanganjToday

শিরোনাম

কোরবানির হাটের পর আবারও আলোচনায় সেই শীলা


কোরবানির হাটের পর আবারও আলোচনায় সেই শীলা

তুমুল আলোচনার জন্ম দিয়েছিলেন রূপগঞ্জের শীলা পাল। সনাতন ধর্মালম্বী হয়েও তিনি কোরবানির পশুর হাটের ডাক অসাম্প্রদায়িকতার দৃষ্টান্ত উদাহরণ করেছিলেন। এ আলোচনা রূপগঞ্জ ছাড়িয়ে পুরো জেলা এবং একটা সময় সারা দেশেই বেশ আলোচিত হয়েছিলো।

এবার সেই শীলা পাল আবারও আলোচনায় এসেছেন। হয়েছেন সংবাদ শিরোনাম। তবে, এবার ইতিবাচক নয় নেতিবাচক সংবাদে শিরোনাম হতে হয়েছে শীলা পালকে। তিনি একাধারে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ ও জেলা পরিষদের সদস্য এবং রূপগঞ্জ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

২৪ আগস্ট দুপুরের দিকে আলোচিত এই শীলা পালের ছেলে দুর্জয় পালকে বিদেশী মদ ও বিয়ারসহ আটক করে র‌্যাব-১ এর একটি টিম। উপজেলার ভুলতা মুর্তজাবাদ এলাকায় স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা মাহবুবুর রহমানের বাড়ি থেকে তাকে আটক কা হয়। তার কাছ থেকে বিদেশী বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ২২ বোতল মদ, ৪৬ ক্যান বিয়ার এবং এক লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার পর থেকে পুরো এলাকাজুড়ে চলছে তীব্র আলোচনা, সমালোচনা। যার রেশ ছড়িয়েছে পুরো জেলাজুড়েই।

স্থানীয়রা বলছেন, মা শীলা পাল ক্ষমতাসীন দলের নেত্রী হওয়ার সুবাধে ব্যাপক প্রভাবশালী তিনি। আর এই প্রভাবে অনেক আগেই উচ্ছন্নে গেছেন তার ছেলে দুর্জয় পাল। মায়ের প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই এই দুর্জয় পাল বিদেশী মদের ব্যবসা করে আসছিলো। অনেকের মতে, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা মাহবুবুর রহমানের ওই বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে সে এই ব্যবসা চালাতো। তার সহযোগি হিসেবে হারুন নামে আরও এক যুবকও রয়েছে।

র‌্যাব-১ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর আব্দুল্লাহ আল মেহেদী জানান, আটক দুর্জয়কে প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করেছে, দীর্ঘদিন ধরেই এই মদের ব্যবসা সে চালিয়ে আসছিলো।

২৫ আগস্ট, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে