NarayanganjToday

শিরোনাম

এবার এসপিকে বিতর্কিত করার মিশনে বিশেষ পেশার ব্যক্তি!


এবার এসপিকে বিতর্কিত করার মিশনে বিশেষ পেশার ব্যক্তি!

তার প্রথম পরিচয় তিনি প্রভাবশালী একজন সাংসদের একনিষ্ঠ অনুগামি। যা বিগত ১৯৯৬ থেকে শুরু করে ২০০১ সাল পর্যন্ত সে স্বাক্ষর তিনি রেখেছিলেন রাতের আঁধারে পুলিশ সাথে নিয়ে বিএনপি দলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি হানা দিয়ে।

সবার কাছে ভালো মানুষ হিসেবে পরিচিত। ¯েœহের মানুষ হয়েও সে সময় তিনি পুরো পঞ্চবটিজুড়ে তুমুল বিতর্কিত হয়ে উঠেন। পরবর্তীতে ২০০১ সালে বিনা কারণেই, বিনা উস্কানিতে তিনি এলাকা ছেড়ে চলে যান বিএনপির যে নেতাকর্মীদের ক্ষতি করেছিলেন তাদের ভয়ে।

তবে, চতুর ওই ব্যক্তিটি বর্তমান সাংসদের অনুকম্পা পেতে গল্প ফাঁদেন। তাকেসহ তার পরিবারকে বিএনপির নেতাকর্মীরা অত্যাচার করেছিলো বলেও রটিয়ে দেন তার এক গুরুর মাধ্যমে। যিনি গান বাজনা করতেন। আর ওই বিশেষ পেশার ব্যক্তিটি তখন তার সাথে তবলা বাজাতেন। এভাবেই তিনি অত্যন্ত কাছে চলে আসেন সাংসদের। এখন তিনি সাংসদের বিশ্বস্ত অনুগামী হিসেবেই রয়েছেন। পরবর্তীতে সাংসদের কৃপায় তিনি হয়েছেন বিশেষ পেশার লোক। পেয়েছেন দু’দুটি গণমাধ্যমে চাকরি।

বর্তমানে তিনি বিশেষ পেশার পরিচয়ে এবং ভদ্রতার লেবাসে দাপিয়ে বেড়ান যত্রতত্র। এবার এই তিনিই অত্যন্ত সু-কৌশলে বিতর্কে জড়িয়ে দিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারকে। জুয়ার আসর থেকে গ্রেফতার হওয়ার মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর গ্রেফতারকৃত সেই জুয়াড়িকে এসপির পাশে বসিয়ে এই বিতর্ক সৃষ্টি করেছেন ওই বিশেষ পেশার ব্যক্তিটি। এমনটাই অভিযোগ স্থানীয়, প্রশাসন থেকে শুরু করে সর্বত্র।

সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জে যোগদানের পর থেকেই অপ্রতিরুদ্ধ এসপি হারুন অর রশীদ। তিনি অপরাধ দমনের ক্ষেত্রে কাউকেই ছাড় দিচ্ছেন না। এ কারণে সাধারণ মানুষের সমর্থনও তিনি আদায় করেছেন। কিন্তু একটি পক্ষের স্বার্থে আঘাত দেওয়ার কারণে ওই পক্ষটি নানা ভাবেই এসপিকে বিতর্কীত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু সেও হয়ে উঠছিলো না।

তবে, এবার দুর্গা পূজাকে কেন্দ্র করে ওই পক্ষের হয়ে অত্যন্ত সুকৌশলে এসপি হারুন অর রশীদকে চরমভাবে বিতর্কের জালে বিদ্ধ করে দিয়েছেন বিশেষ পেশার পরিচয় দানকারী ওই ব্যক্তিটি। সেও আবার মধ্যরাতে জুয়ার আসর থেকে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিকে এসপির পাশে দাঁড় করিয়ে দিয়ে। এ নিয়ে এখনও সর্বত্রই চলছে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা।

সূত্র বলছে, পুলিশী অভিযানে ইতোমধ্যে যে পক্ষটি সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ, কোণঠাসা সে পক্ষের হয়েই কাজ করেন বিশেষ পেশার পরিচয়দানকারী ওই ব্যক্তি। মূলত তিনি ওই পক্ষটির হয়েই বিশেষ পেশার আড়ালে কাজ করে যান। যা সর্বজন স্বীকৃতি।

প্রসঙ্গত, ৩ অক্টোবর দিবাগত রাতে হরিহরপাড়া এলাকার দি ইউনাইটেড এসোসিয়েশনে ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে শিল্পপতি তাপুসহ ৭ জুয়াড়িকে আটক করে। পরদিন শুক্রবার বিকেলে তারা ২শ টাকা করে মুচলেকায় মুক্তি পান।

৬ অক্টোবর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে