NarayanganjToday

শিরোনাম

নিজেদের অবস্থান জানার সফরে বাংলাদেশ দল


নিজেদের অবস্থান জানার সফরে বাংলাদেশ দল

সামনে বিশ্বকাপ আর তার আগে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধ কন্ডিশনে নিজেদের মেলে ধরার চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ কতটা ভালোভাবে সামলাতে পারে বাংলাদেশ, সেটি দেখার অপেক্ষায় কাকপ্রতীক্ষা স্টিভ রোডসের। কারণ বিশ্বকাপের আগে এই সফরের পারফরম্যান্সই যে বিশ্ব ক্রিকেটে বাংলাদেশের অবস্থান নির্দিষ্ট করবে আরো।

তাই এবারের নিউজিল্যান্ড সফরে যাওয়া মানে এটিও জানা যে, ‘আমরা কোথায় আছি?’ আট ক্রিকেটারকে নিয়ে গতকাল দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে ক্রাইস্টচার্চের পথে রওনা হওয়ার আগে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সেটিই জানিয়ে গেলেন হেড কোচ রোডস।

আগে থেকেই জানা যে বিপিএলের কারণে এবার বাংলাদেশ দল নিউজিল্যান্ডে যাবে দুই ভাগে। এর প্রথম ভাগে কাল গেলেন সেই ক্রিকেটাররা, যাঁদের দল ইতিমধ্যেই বিপিএল থেকে ছিটকে পড়েছে। মুশফিকুর রহিম, মাহমুদ উল্লাহ, মুস্তাফিজুর রহমান, লিটন কুমার দাশ, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাঈম হাসানদের নিয়ে কালকের যাত্রায় রোডস ছাড়াও সঙ্গী হলেন ম্যানেজার খালেদ মাসুদও।

ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ মিঠুন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও শফিউল ইসলামরা রওনা হবে বিপিএল ফাইনালের পরদিন ৯ ফেব্রুয়ারি রাতে। তারা ১৩ ফেব্রুয়ারির প্রথম ওয়ানডের ভেন্যু নেপিয়ারে গিয়ে থাকবেন দলের বাকি সদস্যদের অপেক্ষায়। কারণ প্রথম ভাগে যাওয়া ক্রিকেটাররা ১০ ফেব্রুয়ারি লিঙ্কনে একটি এক দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে তবেই নেপিয়ারে যোগ দেবেন মাশরাফিসহ অন্যদের সঙ্গে। সেই ম্যাচের জন্য একাদশ গড়তে অবশ্য স্থানীয় ক্রিকেটারদেরও অন্তর্ভুক্ত করতে হবে বাংলাদেশকে।

এরপর মূল লড়াই দিয়ে স্টিভ রোডস এটি জানতে চান যে, ‘বিশ্ব ক্রিকেটে আমরা কোথায় আছি, এই সফর থেকে সেই ধারণাই পাওয়া যাবে। বিশ্বকাপের আগে আমরা সঠিক পথেই আছি কি না, জানা যাবে সেটিও। আপনারা জানেন বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গেও (আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ) খেলা আছে আমাদের। বিশ্বকাপের আগে ওই ম্যাচগুলো হবে আমাদের জন্য প্রস্তুতির শেষ ছোঁয়া।’

বিরুদ্ধ কন্ডিশনে প্রস্তুতির শুরু এই নিউজিল্যান্ড সফর দিয়েই। যেখানে স্বাগতিকদের বিপক্ষে আজ পর্যন্ত কোনো ম্যাচ জেতা হয়নি বাংলাদেশের। তিন ফরম্যাট মিলিয়ে খেলা ২১ ম্যাচে জয়হীন বাংলাদেশ কোনো টেস্টও ড্র করতে পারেনি কখনো। এবার সাফল্যের সেই শূন্য খাতায় কিছু জয় লিখে আসতে পারার প্রতিজ্ঞাও শোনা গেল স্টিভ রোডসের কণ্ঠে। যদিও বাংলাদেশের সবশেষ নিউজিল্যান্ড সফরের নিরিখে সেটি বেশ কঠিন হবে বলেও মানলেন, ‘আশা করছি এবার কিছু ম্যাচ জিতব। সেখানে কিছু ম্যাচ জিততে পারাটা হবে দারুণ ব্যাপার। কিন্তু কাজটি সহজও নয়। নিউজিল্যান্ডে সবশেষ সফরই এর প্রমাণ।’

কঠিন হলেও বিশেষ করে ওয়ানডেতে ফল বের করে আনাই বেশি সম্ভবপর বলে মনে করেন রোডস। কেন? সে ব্যাখ্যাও দিয়েছেন এই ইংলিশ কোচ, ‘এই ছেলেদের নিয়ে আমরা খুশি। খুব খুশি খেলোয়াড়দের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স নিয়েও। তা ছাড়া ওয়ানডেটা আমরা ভালো খেলি। এই ফরম্যাটে নিজেদের সামর্থ্য নিয়ে আমরা গর্ববোধও করি। তাই আমাদের সেরা ফলের আশাটা ওয়ানডে ঘিরেই।’

তাই বলে টেস্ট ম্যাচে ভালো করার লক্ষ্যও বিসর্জনে যায়নি। সেই লক্ষ্য যে ভিত্তিহীন নয়, কথায় বুঝিয়ে দিয়েছেন সেটিও, ‘টেস্ট ম্যাচগুলো খুব কঠিন হবে নিঃসন্দেহে। সেই সঙ্গে এটিও বলতে হয়, এখন আমরা দেশের বাইরে খেলার জন্য আগের চেয়ে একটু বেশিই প্রস্তুত। আশা করছি এবার টেস্ট ম্যাচেও আমরা ভালো ফল বের করতে পারব।’ এবার প্রথমবারের মতো নিউজিল্যান্ডে তিন টেস্টের সিরিজ খেলতে গেল বাংলাদেশ। সবশেষ সফরে টেস্টে দারুণ কিছু ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের ঝলক থাকলেও শেষ পর্যন্ত হারই নিয়তি হয়ে থেকেছে তাদের। এবার সেই ভাগ্য বদলাবে কি না, সে প্রশ্নের উত্তর মিলবে টেস্ট সিরিজে। তার আগে বিশ্বকাপ সামনে রেখে ওয়ানডে সিরিজও মহাগুরুত্বপূর্ণ মাশরাফি বিন মর্তুজাদের জন্য।

সেই সিরিজের ফলই তো জানাবে বাংলাদেশের অবস্থান!

৭ ফেব্রুয়ারী,২০১৯/এমএ/এনটি

উপরে