NarayanganjToday

শিরোনাম

টাইগারদের লজ্জায় ডুবালো লঙ্কানরা


টাইগারদের লজ্জায় ডুবালো লঙ্কানরা
সংগৃহীত

দীর্ঘ ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসার স্বপ্নটা দ্বিতীয় টি-২০তে জিতে পূরণ করতে চেয়েছিলো টাইগাররা। কিন্তু রবিবার অনুষ্ঠিত এই ম্যাচেও কোচ হাতুরাসিংহের শীষ্যদের কাছে ৭৫ রানের বড় ব্যবধানে পরাজিত হয়ে সেই স্বপ্নটা অধরাই থেকে গেলো বাংলাদেশের।

এদিন ১৮.৪ ওভারে মাত্র ১৩৫ রানেই থেমে যায় ব্যাট হাতে মাহমুদুল্লাহ তামিমদের লড়াই।

ফলে লজ্জার ষোলোকলা পূর্ণ করে সিরিজে ২-০তে লঙ্কানদের কাছে হোয়াইট ওয়াশ হলো টাইগাররা। আর এই সিরিজ জিতে দেশে ফেরার আগে তিনটি ট্রফিই নিজেদের ঝুলিতে ভরে নিল লঙ্কানরা।

শ্রীলঙ্কার দেয়া ২১১ রানের লক্ষ্য বিশাল বোঝা হয়ে চেপে বসে ব্যাটসম্যানদের উপর। সেই চাপে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পরে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন আপ। প্রথম পাঁচ ব্যাটসম্যানের মধ্যে তামিম ছাড়া দুই অঙ্কের ঘরেই পৌঁছাতে পারেননি কেউ। তামিমের উপর প্রত্যাশা ছিল অনেক বেশি। কিন্তু এই প্রত্যাশার চাপের সঙ্গে লঙ্কানদের বড় রানের চাপ মিলে তামিমকে থামিয়ে দেয় ২৯ রানে। তার উপর ছিল অন্যপ্রান্তে ব্যাটসম্যানদের যাওয়া আসার মিছিল।

আগের ম্যাচে অর্ধশতক হাঁকানো সৌম্য এই ম্যাচে এতোটাই নির্ভার ছিলেন যে কোনো বাছবিচার না করেই দৃষ্টিকটু ভাবে ক্যাচ তুলে দিলেন। তার দেখানো পথটা দলের জন্য মঙ্গলজনক না হলেও সেই পথে হেঁটেছেন তার পরের দুই ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম এবং মোহাম্মদ মিথুন। কিভাবে ক্যাচ তুলে দিতে হয় যেন সেই মহড়া চলছিল সিলেটের মাঠে। লঙ্কানদের ব্যাট করার সময় মনে হওয়া সিলেটের ব্যাটিং পিচ কোন এক জাদুকরের জাদুতে মুহুর্তেই যেন বোলিং পিচ হয়ে যায়। বাংলাদেশের ব্যাটিং দেখে মনে হয়েছে একটু আগে যে পিচে লঙ্কানরা ব্যাট করছিল এটা ঠিক সেই পিচ নয়। উইকেটে দাঁড়িয়ে থাকতে ব্যাটসম্যানদের খাবি খেতে হয়েছে অনেক।

অধিনায়ক মাহমুদউল্লার ৩১ বলে ৪১ রান ছিল সম্মান বাঁচানোর ক্ষুদ্র প্রয়াস। রিয়াদের করা ৪১ রানের সঙ্গে তামিমের ২৩ বলে ২৯ আর সাইফউদ্দিনের ২১ বলে ২০ রানের ইনিংসেই কিছুটা মুখ রক্ষা হয় টাইগারদের।

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮/ আরসি/এনটি

উপরে