NarayanganjToday

শিরোনাম

দুই যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনে গ্রেফতার দুজন রিমান্ডে


দুই যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনে গ্রেফতার দুজন রিমান্ডে

কুতুবপুরে আওয়ামী লীগ নেতার অফিসে দুই যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দুজনকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

রোববার (১২ জানুয়ারি) সকালের দিকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল মহসিনের আদালতে পুলিশ ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে শুনানি শেষে ১ দিন করে মঞ্জুর করেন বিচারক।

রিমান্ডে নেয়া দুজন হলেন, কুতুবপুর শাহী মহল্লা এলাকার আব্দুল কাদেরের ছেলে রবিন এবং একই এলাকার শফিকুর রহমানের চেলে ইউনুছ। তারা দুজনই আওয়ামী লীগ আলাউদ্দিন হাওলাদারের সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্য।

নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের ইন্সপেক্টর আসাদুজ্জামান এর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ অধিকতর তদন্তের স্বার্থে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে শুনানি শেষে আদালত ১ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করে আদেশ দেন।

১০ জানুয়ারি দিবাগত রাতে কুতুবপুরের শাহীমহল্লা মুসলিমপাড়া এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর আগে এদিন বিকেলে আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দিন হাওলাদারের অফিসে নির্যাতনের শিকার নাঈমের মা নাজমা বেগম বাদী হয়ে আলাউদ্দিন হাওলাদারসহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

তবে, মামলা দায়েরের তিনদিন অতিবাহিত হলেও নাটের গুরু আলাউদ্দিন হাওলাদার এখনও রয়েছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। তিনি এলাকায় সদর্পেই ঘুরে বেড়াচ্ছেন এবং তার ব্যবহৃত মুঠোফোনটিও খোলা রয়েছে। এ নিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে স্থানীয় থানা পুলিশ।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ১২ ডিসেম্বর শাহী মহল্লা এলাকা থেকে শফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি বিদেশী জাতের ছাগল চুরি হয়। এ ঘটনায় ৩১ ডিসেম্বর মুসলিমপাড়া এলাকার রাতুল ও নাঈম নামে দুই যুবককে ধরে আনা হয় কুতুবপুর দুই নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার আলাউদ্দিন হাওলাদারের অফিসে। এখানে এই আওয়ামী লীগ নেতার নির্দেশে তারই সামনে ওই দুই যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালানো হয়। এই নির্যাতনের একটি ভিডিও ৯ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ টুডে’র কাছে আসলে এ নিয়ে শুরু হয় ব্যাপক তোলপাড়। সর্বত্র ধিক্কার ও ঘৃণা ছুড়তে থাকে মানুষ। আলাউদ্দিন হাওলাদারের গ্রেফতার দাবি উঠে।

এদিকে ওই ঘটনায় ১০ জানুয়ারি নির্যাতনের শিকার যুবক নাঈমের মা নাজমা বেগম আলাউদ্দিন হাওলাদারসহ ৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন ফতুল্লা মডেল থানায়। তবে, এ মামলায় এখনও ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন নাটের গুরু আলাউদ্দিন হাওলাদার।

১২ জানুয়ারি, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে