NarayanganjToday

শিরোনাম

বিসিকে ১ লাখ ৩৩ হাজার ভোল্টে ঝলসে গেছে স্বামী-স্ত্রীসহ ৩ জন


বিসিকে ১ লাখ ৩৩ হাজার ভোল্টে ঝলসে গেছে স্বামী-স্ত্রীসহ ৩ জন

ফতুল্লায় বিসিকে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ঝলসে গেছেন এক দম্পতিসহ তিনজন। তাদেরকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। এরমধ্যে দম্পতির অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সোমবার (১৩ জানুয়ারি) দুপুরের দিকে ফতুল্লার এনায়েতনগর শাসনগাঁও বিসিক শিল্পনগরী এলাকার ওহাব সরদারের তৃতীয় তলা ভবনের ছাদে ওই ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, ময়মনসিংহের ফুলপুর গোপপুর এলাকার আবুল কালামের ছেলে মাহাবুব ইসলাম (২৭) এবং তার স্ত্রী মোসামৎ রনি আক্তার (২২)। তারা দুজনই ওই এলাকার মিজানুর রহমানের বাড়িতে ভাড়ায় বসবাস করেন এবং বিসিকে একটি গার্মেন্টে কাজ করেন। একই সময় তাদের রক্ষা করতে গিয়ে একই বাড়ির ভাড়াটিয়া নাসির উদ্দিনের স্ত্রী সুমী বেগমও (২৮) ঝলসে গেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুরের দিকে খাদিজা বেগম ভেজা কাপড় শুকানোর জন্য ওহাব মিয়ার তৃতীয় তলার বাড়ির ছাদে উঠেন। সেখানে তিনি ভেজা কাপড় নির্দিষ্ট একটি তারে মেলে দিতে গেলে পাশ্ববর্তী স্থান দিয়ে এক লক্ষ ৩৩ হাজার ভোল্টের বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে পড়েন। খবর পেয়ে নিচ থেকে দৌঁড়ে আসেন তার স্বামী মাহাবুব। তিনি স্ত্রীকে বাঁচাতে গিয়ে নিজেও ঝলসে যান। এসময় তাদেরকে রক্ষা করতে গেলে সুমীও ঝলসে যায়। পরে পার্শ্ববর্তী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা তাদেরকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল প্রেরণ করেন।

বিসিক ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন মাস্টার কাজল মিয়া এর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পাশ্বর্তী স্থানে দুর্ঘটনাটি ঘটার কারণে দ্রুত তাদেরকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে, তাদের মধ্যে স্বামী স্ত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে জানান, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে স্বামী স্ত্রী মাহবুব ও খাদিজা নামে দুজনকে বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

তিনি আরও বলেন, মাহবুব ইসলামের ৯৫ শতাংশ এবং তার স্ত্রী মোসাম্মৎ রনি ওরফে খাদিজার ৭৫ শতাংশ ও সুমীর শরীর ১০ শতাংশ ঝলসে গেছে।

১৩ জানুয়ারি, ২০২০/এসপি/এনটি

উপরে