NarayanganjToday

শিরোনাম

তাকে এক ঘণ্টাও এলাকায় থাকতে দিব না : শাহ নিজাম


তাকে এক ঘণ্টাও এলাকায় থাকতে দিব না : শাহ নিজাম

সাধারণ জনগণ সাংসদ শামীম ওসমানের কাছের লোক মন্তব্য করে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম বলেছেন, এই কাছের লোকদের মধ্যে কেউ যদি এখন এসে আমার সাথে ছবি তুলে আর সেই ছবি দিয়ে পোস্টার বানায় এবং সে যদি হয় সন্ত্রাসী মাদক ব্যবসায়ী তাহলে কি এতে এমপি সাহেবের বদনাম হবে না? হবে। তাই আমি তো আমার নেতার বদনাম করতে পারি না।

বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে কুতুবপুরের শান্তিধারা এলাকায় আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

শাহ নিজাম বলেন, শামীম ওসমান এমন একজন ব্যক্তি যার প্রিয় ব্যক্তিত্ব বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী মানবতার মা শেখ হাসিনা। তিনি বাংলাদেশের প্রতিটি প্রান্তে ঘুরে ঘুরে উন্নয়ণ করে যাচ্ছে। এতে করে আমরা সম্মানিত হচ্ছি। বিশ্বের কাছে আমাদের কদর বাড়ছে। আগে আমাদের পাসপোর্ট দেখলে ভিসা দিতে চাইতো না। এখন সম্মানের সাথে ভিসা দিয়ে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, রাতদিন পরিশ্রম করে শেখ হাসিনা এই দেশের উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর আস্থাভাজন আমাদের প্রিয় নেতা শামীম ওসমান অক্লান্ত পরিশ্রম করে এক মন্ত্রণালয় থেকে আরেক মন্ত্রণালয়ে ঘুরে ঘুরে আপনাদের ভাগ্য উন্নয়ণের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। কিন্তু আপনার, আমার কিংবা এলাকার নেতৃত্বের কারণে তার বদনাম হবে। আর সেই বদনাম আমরা চুপচাপ শুনবো সেটা কিন্তু কেউ ভাইবেন না। আমরা কিন্তু এ ব্যাপারে কাউকে ছাড় দিবো না।

নিজাম আরও বলেন, রাস্তা-ঘাট হচ্ছে, পুল কালভার্ট হলো, এলাকার উন্নয়ণ হলো। কিন্তু এলাকার মানুষ যদি ভালো না হয়, তাহলে এই উন্নয়ণ দিয়ে কি হবে? এই উন্নয়ন, রাস্তা-ঘাট কোনো কাজে আসবে না যদি এলাকার যুবকেরা মাদক খায়, ব্যবসা করে আমার মা বোনকে যদি সম্মান না করে।

তিনি বলেন, মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসীরা অনেক ক্ষমতাশালী শামীম ওসমানের সাথে, শাহ নিজামের সাথে, মীর সোহেলের সাথে তার ছবি আছে! ছবিটা দিয়েন। শত্রুতার সাথে না। মিথ্যার আশ্রয়ে দিয়েন না। তথ্য প্রমাণসহ তার ছবি দিয়েন। সে যত বড় শক্তিশালী হোক, এক ঘণ্টাও তাকে এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না।

কুতুবপুর ইউনিয়ন (১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ড) আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সালাউদ্দিন ভূঁইয়া'র সভাপতিত্বে ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. সুরুজ বেপারী’র উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী, কুতুবপুর ইউনিয়ন শান্তিধারা গিরিধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আ. রাজ্জাক বেপারী, সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুর রাজ্জাক ফকির, কুতুবপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি পদ প্রার্থী মো. রাসেল মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরু প্রধান, মো. মিন্টু, সাইনবোর্ড হর্কাস মার্কেটের সভাপতি সাত্তার বেপারী, শান্তিধারা উন্নয়ন কমিটির সভাপতি আনোয়ার হোসেন মেম্বার, সাধারণ সম্পাদক মুন্সি আব্দুল আলিম, শান্তিধারা গিরিধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মোল্লা প্রমূখ।

১৯ ডিসেম্বর, ২০১৯/এসপি/এনটি

উপরে